X

Type keywords like Social Business, Grameen Bank etc.

Present World is on a Disaster Path - Yunus Warns Former Presidents and Prime Ministers in a Side Event During UN Week in NY

Present World is on a Disaster Path - Yunus Warns Former Presidents and Prime Ministers in a Side Event During UN Week in NY

Press Release (2-OCT-2019)

Caption for Photo 1: Professor Yunus at the special IOC dinner hosted by Thomas Bach, President of the International Olympic Committee. Guests included Laura Chinchilla, ex President of Costa Rica, Luis Moreno, President of the Inter-American Development Bank, King Willem-Alexander Claus George Ferdinand, King of the Netherlands, Prince Albert of Monaco, Richard Carrión, Board of Verizon, former Director of FED New York, Anita DeFrantz, US Olympian and, Mamadou Diagna Ndiaye, President NOC Senegal.

On Sept 25, Nobel Laureate Professor Muhammad Yunus addressed the exclusive side event to the UN General Assembly on the issue of “Geopolitics in the Age of Sustainable Development” at Harvard Club and organized by Kerry Kennedy, founder and CEO of Robert F. Kennedy: Ripples of Hope, a Human Rights Foundation . Thirty former Presidents and Prime ministers and Heads of international organizations attended the event. Among them were: Amre Moussa, former Secretary General of Arab League, Ian Fischer, former Prime minister of Czech Republic, Ismail Serageldin, former Vice President of the World Bank, Susan Elliot, President and CEO of National Committee on American Foreign Policy, Ivo Josipovic, former President of Croatia, Zlatko Lagyumdzija. Former Prime minister of Bosnia, and Herzegovina, Yves Leterme, former Prime minister of Belgium, George Papandreou, former Prime minister of Greece, Rosen Plevneliev, former President of Bulgaria Danilo Turk, former President of Slovenia and Nobel Laureate Kailash Satyarthi. 

 

Professor Yunus addressed the gathering and shared his three worries pertaining to the present day world. He elaborated why he believed that the path followed by the present world is a path to disaster. One of his three worries are: ever increasing speed of extreme concentration of wealth in fewer and fewer hands. Not only global wealth concentrating in fewer hands, it is concentrating in fewer countries, leaving the wide world barren of wealth. This destroys the geopolitical balance in the world as well as social balance in between countries and within countries. 

His second worry is climate change which is approaching fast but for which no real actions have been put in place to arrest the deterioration. The world has very little time left to act to save it from total destruction. “We are left with only two to three decades to save ourselves”, he said. Our next generation may not see normal life as understood in the past. It is becoming evident that the next generation doesn’t have a future at all. His third worry is the fast moving intrusion of artificial intelligence which will be replace human beings in every aspect of economic activity. He wondered if human beings would survive at all when AI takes over all their work. There are those that argue that when AI takes over, human beings will have nothing to worry as they will enjoy their lives with a universal basic income provided by the government. To them Yunus raised the question “If AI takes over everything, will there be any government left under the control of human beings?” In any case he did not wish to see a time when human beings would become beggars for physical survival.

During the UN Week, Yunus attended the UN Summit on SDGs where Heads of State and Government gathered at the United Nations Headquarters in New York to follow up and comprehensively review progress in the implementation of the 2030 Agenda containing 17 Sustainable Development Goals. It was the first UN summit on the SDGs since the adoption of the 2030 Agenda in September 2015.

In his address to the SDG Advocates, the UN Secretary General mentioned, “The 2030 Agenda is coming to life”, referring to the blueprint for a healthier planet and a more just world, as he launched the first Sustainable Development Goals (SDG) Summit in New York. However, despite encouraging progress, António Guterres warned that much more needs to be done, and “we must step up our efforts now”.

Professor Yunus had a three hour pre-arranged meeting with Marina Silva, former Brazilian Minister for the Environment for President Lula’s government, an environmental activist and Goldman Prize winner, and her team. She also was a Presidential candidate in the last general election of Brazil. This meeting was requested by Marina Silva to discuss the threat to the global environment created by Amazon fire recently. She pointed out that fire in the Amazon forest is increasing without limit. There was an 83% increase in forest fires in the Amazon since last year. Yunus told her that two major events took place this year to bring the focus of the entire world to the environmental crisis irrespective of political orientation. First was the emergence of Greta Thunberg. She highlighted the issue of urgency of environmental action to the global public, particularly to the young people, even to those who did not pay any attention to environmental crisis. The second was the Amazon fire. It was on every TV screen in every country for days, moving everyone emotionally, making people feel the gravity of the situation and willingness to do something about it. While Greta continued to build up support for protecting environment across the globe, the memory of Amazon fire died away without producing a movement to protect the environment. Marina and Yunus agreed to build a movement not only to protect Amazon but to let it flourish. Marina Team later met with Yunus Team to work out the outline of the steps to be taken in the coming months in Brazil, and throughout the world. Yunus proposed some social businesses to transform the Amazon region.

Yunus attended as an SGD Advocate appointed by the UN Secretary General, the special UN SDG Advocate reception attended by the Secretary General Mr. António Guterres and Amina Jane Mohammed, Deputy Secretary-General of the United Nations. Secretary General welcomed the new group of SDG Advocates and explained to them the importance of their role in taking these goals to both the youth and the general audience, to encourage them to design and implement their actions plans in order to achieve such goals effectively. New Advocates were introduced to the emeritus Advocates to pass on their experiences to the new Advocates.

International Olympic Committee (IOC) President Thomas Bach invited Professor Yunus to an exclusive dinner for a few friends and advisors at a restaurant to thank them for their support and discuss upcoming events and programmes of IOC. Besides Yunus, other guests were Laura Chinchilla, former President of Costa Rica, Willem-Alexander Claus George Ferdinand, His Majesty King of the Netherlands, Prince Albert of Monaco, Luis Moreno, President of the Inter-American Development Bank, Richard Carrión, Board of Verizon, former Director of FED New York, IOC Member Anita DeFrantz, US Olympian, and IOC member Mamadou Diagna NDIAYE, and President National Olympic Committee of Senegal.  

Professor Yunus was invited by Christophe Itier, French High Commissioner for the Social and Solidarity Economy and Social Innovation for Impact, addressed the meeting of global alliance for social and inclusive economy, which is an European initiative to form an Alliance of countries to promote social and inclusive economy. Yunus elaborated to the representatives of various governments which have joined the Alliance the importance of creating and expanding social businesses to address the social problems in a sustainable way. He underlined that every citizen can play an important role in solving social problems. Governments instead of giving the impression that they are solely responsible for solving social problems should facilitate each citizen to undertake his/her own initiatives. While governments are doing their best to solve the problems, they should play the role of cheer-leaders and facilitators for engaging their own citizens through creating innovative social businesses.

Caption for Photo 2: Professor Muhammad Yunus with Marina Silva, the renowned climate activist and former Brazilian Minister for Environment  

Caption for Photo 3: Professor Yunus with critically acclaimed Icelandic/Danish artist and climate activist Olafur Eliasson, the newest UNDP Goodwill Ambassador for climate action and Sustainable Development Goals (SDGs)

---

প্রেস রিলিজ

“বিপর্যয়ের পথে এগিয়ে চলছে বিশ্ব” নিউ ইয়র্কে অনুষ্ঠিত জাতি সংঘ সপ্তাহে প্রাক্তন প্রেসিডেন্ট ও প্রধানমন্ত্রীদের সম্মেলনে প্রফেসর ইউনূসের সতর্ক বার্ত২৫ সেপ্টেম্বর ২০১৯ নিউ ইয়র্কে জাতি সংঘ সাধারণ পরিষদের বৈঠকের পাশাপাশি বিশ্ব নেতাদের একটি গুরুত্বপূর্ণ সম্মেলনে ভাষণ দেন নোবেল লরিয়েট প্রফেসর মুহাম্মদ ইউনূস। হার্ভার্ড ক্লাবে অনুষ্ঠিত “টেকসই উন্নয়নের যুগে ভ‚-রাজনীতি” শীর্ষক এই সম্মেলনের আয়োজক ছিলেন বিশিষ্ট মানবাধিকার ফাউন্ডেশন “রবার্ট এফ কেনেডী: রিপল্স অব হোপ” এর প্রতিষ্ঠাতা ও প্রধান নির্বাহী কেরী কেনেডী। পৃথিবীর বিভিন্ন দেশের ৩০ জন প্রাক্তন প্রেসিডেন্ট ও প্রধানমন্ত্রী এবং বিভিন্ন আন্তর্জাতিক সংগঠনের প্রাক্তন প্রধান নির্বাহীরা এতে যোগ দেন। এঁদের মধ্যে ছিলেন আরব লীগের সাবেক মহাসচিব আমরে মুসা, চেক প্রজাতন্ত্রের প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী আয়ান ফিশার, বিশ্ব ব্যাংকের সাবেক ভাইস-প্র্রেসিডেন্ট ইসমাইল সেরাগেলদিন, মার্কিন বৈদেশিক নীতি বিষয়ক জাতীয় কমিটির প্রেসিডেন্ট ও প্রধান নির্বাহী সুসান ইলিয়ট, ক্রোয়েশিয়ার প্রাক্তন প্রেসিডেন্ট আইভো জোসিপোভিক, বসনিয়া ও হার্জেগোভিনার প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী জøাটকো লাগিউমদিজা, বেলজিয়ামের প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী ইভেস লেটারমে, গ্রীসের প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী জর্জ পাপানদ্রæ, বুলগেরিয়ার প্রাক্তন প্রেসিডেন্ট রোজেন প্লেভনেলিয়েভ, স্লোভেনিয়ার প্রাক্তন প্রেসিডেন্ট ডানিলো টার্ক, ভারতের নোবেল লরিয়েট কৈলাশ সত্যার্থী প্রমূখ।

সম্মেলনে প্রফেসর ইউনূস বর্তমান পৃথিবী নিয়ে তাঁর তিনটি উদ্বেগ অংশগ্রহণকারীদের নিকট তুলে ধরেন। তিনি ব্যাখ্যা করে বলেন, কেন তিনি মনে করেন যে পৃথিবী এখন যে পথে এগিয়ে চলছে তা বিপর্যয়ের পথ। তাঁর একটি উদ্বেগ হচ্ছে স্বল্প থেকে স্বল্পতর লোকের হাতে সম্পদের চরম ও ক্রমাগত কেন্দ্রীকরণ। পৃথিবীর সম্পদ যে কেবল অল্প কিছু লোকের হাতে কেন্দ্রীভ‚ত হচ্ছে তা নয়, এই সম্পদ ক্রমাগতভাবে পৃথিবীর হাতে গোনা কয়েকটি দেশের মধ্যে কেন্দ্রীভ‚ত হচ্ছে এবং এভাবে পৃথিবীর অবশিষ্ট এলাকা ক্রমাগতভাবে সম্পদশূন্য হয়ে যাচ্ছে। এটা পৃথিবীর ভ‚-রাজনৈতিক ভারসাম্য ধ্বংস করছে এবং একই সাথে দেশগুলোর অভ্যন্তরে এবং বিভিন্ন দেশের মধ্যে সামাজিক ভারসাম্য বিনষ্ট করে দিচ্ছে। তাঁর দ্বিতীয় উদ্বেগটি হচ্ছে জলবায়ু পরিবর্তন ও পরিবেশগত বিপর্যয় যা দ্রæত সংঘটিত হচ্ছে অথচ এটা বন্ধ করার জন্য কোনো কার্যকর পদক্ষেপ নেয়া হচ্ছে না। তিনি বলেন যে, বিশ্বকে পুরোপুরি ধ্বংস হওয়া থেকে রক্ষা করতে আমাদের হাতে খুব কম সময় আছে - বড় জোর দুই থেকে তিন দশক। আমাদের পরবর্তী প্রজন্ম হয়তো কোনো “স্বাভাবিক জীবন” দেখতে পাবে না যা তাদের পূর্ববর্তী প্রজন্মগুলো দেখেছে। এটা ক্রমেই স্পষ্ট হচ্ছে যে, আমাদের পরবর্তী প্রজন্মগুলোর আসলে কোনো ভবিষ্যৎ নেই। তাঁর তৃতীয় উদ্বেগটি হচ্ছে আর্টিফিসিয়াল ইনটেলিজেন্সের দ্রæত বিস্তৃতি যা অর্থনৈতিক জীবনের সকল ক্ষেত্রে মানুষের জায়গা দখল করে নেবে। আর্টিফিসিয়াল ইনটেলিজেন্স মানুষের সকল কাজ কেড়ে নিলে মানুষ পৃথিবীতে আর আদৌ টিকে থাকতে পারবে কি-না তিনি এ নিয়ে সংশয় প্রকাশ করেন। কেউ কেউ বলছে যে, আর্টিফিসিয়াল ইনটেলিজেন্স মানুষের সকল কাজ নিয়ে নিলেও মানুষের দুশ্চিন্তার কোনো কারণ থাকবে না, কেননা মানুষ তখন সরকারের রাজস্ব থেকে দেয়া সার্বজনীন মৌলিক আয়ে ভালভাবে বাঁচতে পারবে। তিনি তাদের সাথে দ্বিমত পোষণ করেন এবং বলেন যে, আর্টিফিসিয়াল ইনটেলিজেন্স যদি সকল কাজই মানুষের কাছ থেকে নিয়ে নেয় সে অবস্থায় মানুষের নিয়ন্ত্রণাধীন সরকার বলে আদৌ কিছু থাকবে এমন কোনো নিশ্চয়তা অনুভব করার কোনো কারণ থাকবে না। তাছাড়া মানুষ তার দৈহিক অস্তিত্বের জন্য ভিক্ষুকে পরিণত হয়েছে Ñ এমন একটা যুগ আসুক তা তিনি তিনি কিছুতেই দেখতে চান না।

জাতি সংঘ সপ্তাহ চলাকালে প্রফেসর ইউনূস টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্য (এসডিজি) বিষয়ক জাতি সংঘ শীর্ষ বৈঠকে যোগ দেন। পৃথিবীর সকল দেশের রাষ্ট্র ও সরকার প্রধানগণ নিউ ইয়র্কে জাতি সংঘ প্রধান কার্যালয়ে আয়োজিত এই বৈঠকে অংশ নেন যেখানে ১৭টি টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্য নিয়ে “২০৩০ এজেন্ডা” বাস্তবায়নের অগ্রগতি নিবিড়ভাবে পর্যালোচনা করা হয়। সেপ্টেম্বর ২০১৫-এ ২০৩০ এজেন্ডা গৃহীত হবার পর টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যের উপর এটাই ছিল জাতি সংঘের প্রথম শীর্ষ পর্যায়ের বৈঠক।

নিউ ইয়র্কে প্রথম এসডিজি শীর্ষ বৈঠক উদ্বোধনকালে একটি অধিকতর স্বাস্থ্যসম্মত ও সুবিচারপূর্ণ পৃথিবীর ব্লু-প্রিন্টের প্রতি ইঙ্গিত করে এসডিজি সমর্থকদের উদ্দেশ্যে জাতি সংঘ মহাসচিব অ্যান্টোনিও গুটেরেস বলেন, “২০৩০ এজেন্ডা গতি পেতে শুরু করেছে।” তবে উৎসাহব্যঞ্জক অগ্রগতি সত্তে¡ও আরো অনেক কিছু করার বাকী আছে বলে তিনি সতর্ক করে দেন এবং বলেন, “আমাদের প্রচেষ্টাগুলোকে আরো জোরালো করতে হবে।”

প্রফেসর ইউনূস ব্রাজিলের প্রাক্তন পরিবেশমন্ত্রী মারিনা সিলভা ও তাঁর সহযোগীদের সাথে তিন ঘন্টার একটি পূর্ব-নির্ধারিত বৈঠক করেন। উল্লেখ্য যে, গোল্ডম্যান প্রাইজ জয়ী পরিবেশকর্মী মিস সিলভা প্রেসিডেন্ট লুলা সরকারের ক্যাবিনেটে পরিবেশ মন্ত্রী ছিলেন। ব্রাজিলের গত সাধারণ নির্বাচনে তিনি প্র্রেসিডেন্ট পদপ্রার্থী ছিলেন। আমাজন অগ্নিকান্ডের ফলে বিশ্বব্যাপী যে পরিবেশগত হুমকি তৈরী হয় তা নিয়ে আলোচনার জন্য তাঁরই অনুরোধে এই বৈঠকের আয়োজন করা হয়। মিস সিলভা বলেন যে, আমাজন বনাঞ্চলের আগুন নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে গেছে। গত বছরের তুলনায় এই বনাঞ্চলে ৮৩ শতাংশ বেশী অগ্নিকান্ড ঘটেছে। প্রফেসর ইউনূস বলেন যে, পরিবেশগত সংকটের বিষয়টি বিশ্ব সমাজের কাছে তুলে ধরতে এ বছর কোনো রকম রাজনৈতিক উদ্যোগ ছাড়াই দু’টি গুরুত্বপূর্ণ ঘটনা ঘটেছে। এর একটি হচ্ছে গ্রেটা থুনবার্গের উদ্ভব, যিনি পৃথিবীর সকলের কাছে বিশেষ করে তরুণ জনগোষ্ঠীর কাছে, এমনকি পরিবেশগত সংকটের দিকে যারা কোনো দিন মনোযোগই দেয়নি তাদের কাছে পরিবেশ রক্ষায় আমাদের করণীয়গুলো যে কতটা জররুী তা তুলে ধরেছেন। দ্বিতীয় ঘটনাটি হচ্ছে আমাজন অগ্নিকান্ড। পৃথিবীর সকল দেশের সকল টেলিভিশনে মানুষ দিনের পর দিন এটা দেখেছে যা তাদেরকে বিচলিত করেছে এবং পরিস্থিতির ভয়াবহতা সম্বন্ধে ভাবতে ও এ বিষয়ে কিছু একটা করার তাগিদ অনুভব করতে বাধ্য করেছে। গ্রেটা বিশ্ব ব্যাপী পরিবেশ রক্ষার কাজে সমর্থন গড়ে তুলতে বিরাট অবদান রাখলেও আমাজন অগ্নিকান্ডের ভয়াবহ স্মৃতি পরিবেশ রক্ষায় কোনো স্বতঃস্ফুর্ত আন্দোলন গড়ে ওঠার আগেই স্তিমিত হয়ে গেছে। মারিনা ও ইউনূস আমাজনকে শুধু রক্ষা নয় বরং এই বনাঞ্চলকে সমৃদ্ধভাবে বেড়ে উঠতে একটি আন্দোলন গড়ে তোলার ব্যাপারে একমত হন। মারিনা ও ইউনূসের টীম এরপর ব্রাজিল ও বিশ্বব্যাপী আগামী মাসগুলোতে কী কী পদক্ষেপ নিতে হবে তার একটি বিস্তারিত রূপরখো তৈরী করার উদ্যোগ নেবার ব্যাপারে একমত হন। প্রফেসর ইউনূস আমাজনের রূপান্তরে কিছু সামাজিক ব্যবসা গড়ে তোলার প্রস্তাব দেন।

জাতি সংঘ মহাসচিব কর্তৃক নিযুক্ত এসডিজি অ্যাডভোকেট হিসেবে প্রফেসর ইউনূস জাতি সংঘের এসডিজি বিষয়ক বিশেষ অ্যাডভোকেটদের একটি অভ্যর্থনা অনুষ্ঠানে যোগ দেন যেখানে আরো অংশ নেন জাতি সংঘ মহাসচিব অ্যান্টোনিও গুটেরেস ও উপ-মহাসচিব আমিনা জেন মোহামেদ। মহাসচিব এসডিজি অ্যাডভোকেটদের নতুন এই সদস্যগোষ্ঠীকে স্বাগত জানান এবং তাঁদের করণীয় ও লক্ষ্যগুলো তরুণ সমাজ ও সাধারণ মানুষের কাছে নিয়ে যেতে এবং এসব লক্ষ্য অর্জনে তাদেরকে তাদের নিজস্ব কর্মপরিকল্পনা প্রণয়ন করতে উদ্বুদ্ধ করার ক্ষেত্রে অ্যাডভোকেটদের ভ‚মিকা কতটা গুরুত্বপূর্ণ তা তুলে ধরেন।

আন্তর্জাতিক অলিম্পিক কমিটির প্রেসিডেন্ট টমাস বাখ সংস্থাটির বিভিন্ন কর্মসূচিতে তাঁদের সমর্থনের জন্য তাঁদেরকে ধন্যবাদ দিতে এবং অলিম্পিকের আসন্ন অনুষ্ঠান ও কর্মসূচিগুলা নিয়ে আলোচনা করতে প্রফেসর ইউনূস সহ তাঁর কয়েকজন বিশিষ্ট বন্ধু ও উপদেষ্টাকে একটি নৈশ ভোজে নিমন্ত্রণ করেন।

অলিম্পিক প্রেসিডেন্টের এই অনুষ্ঠানে অন্যান্যদের মধ্যে ছিলেন কোস্টারিকার প্রাক্তন প্রেসিডেন্ট লরা চিনচিল্লা, নেদারল্যান্ডস এর রাজা উইলেম-আলেকজান্ডার ক্লাউস জর্জ ফার্ডিনান্ড, মোনাকোর প্রিন্স অ্যালবার্ট, ইন্টার-আমেরিকান ডেভেলপমেন্ট ব্যাংকের প্রেসিডেন্ট লুইস মোরেনো, ফেডারেল রিজার্ভ ব্যাংক অব নিউ ইয়র্ক-এর প্রাক্তন পরিচালক রিচার্ড ক্যারিয়ন, আন্তর্জাতিক অলিম্পিক কমিটির সদস্য ও মার্কিন অলিম্পিয়ান অ্যানিটা দ্য-ফ্রান্ট্জ, আন্তর্জাতিক অলিম্পিক কমিটির সদস্য ও সেনেগালের জাতীয় অলিম্পিক কমিটির প্রেসিডেন্ট মামাদো দিয়াগনা এনডিয়ে।

সোশ্যাল এন্ড সলিডারিটি ইকোনমি এন্ড সোশ্যাল ইনোভেশন ফর ইমপ্যাক্ট বিষয়ক ফরাসী হাইকমিশনার ক্রিস্টোফে ইতিয়ে সামাজিক ও অন্তভর্‚ক্তিমূলক অর্থনীতির একটি বৈশ্বিক জোটের সভায় ভাষণ দিতে প্রফেসর ইউনূসকে আমন্ত্রণ জানান। সংস্থাটি সামাজিক ও অন্তভর্‚ক্তিমূলক অর্থনীতির প্রসারে বিভিন্ন দেশের অংশগ্রহণে একটি জোট গঠন করার উদ্দেশ্যে একটি ইউরোপীয় উদ্যোগ। প্রফেসর ইউনূস এই জোটে যোগদানকারী বিভিন্ন দেশের সরকারী প্রতিনিধিদের উদ্দেশ্যে তাঁর ভাষণে টেকসই উপায়ে বিভিন্ন সামাজিক সমস্যা মেকাবেলার উপায় হিসেবে সামাজিক ব্যবসা সৃষ্টি ও সম্প্রসারণের গুরুত্ব তুলে ধরেন। তিনি জোর দিয়ে বলেন যে, সামাজিক সমস্যাগুলোর সমাধানে প্রতিটি নাগরিকই গুরুত্বপূর্ণ ভ‚মিকা পালন করতে পারে। সামাজিক সমস্যাগুলোর সমাধানে সরকারই এককভাবে দায়বদ্ধ - মানুষকে এই ধারণা দেয়ার পরিবর্তে সরকারগুলো বরং প্রতিটি নাগরিককে তাদের নিজ নিজ উদ্যোগ নিয়ে এগিয়ে যেতে সহায়তা করতে পারে। তিনি সরকারগুলোকে এ কাজে তাদের সর্বোত্তম চেষ্টার পাশাপাশি নাগরিকদেরকে বিভিন্ন উদ্ভাবনশীল সামাজিক ব্যবসায়ে উদ্যোগী করতে সহায়ক ও চীয়ার-লিডারের ভ‚মিকা পালন করতে আহ্বান জানান।

Related

In Memory of Abed

In Memory of Abed
Muhammad YunusAbed has left. But it is not possible to bid farewell to him. He remains with us as our companion forever. Since the Liberation War he is in the very grain of our society. There is no layer and sub-layer of our societal make up which has not been touc...

Yunus in Japan: Meets Rola, Bangladeshi Japanese Super Model, Launches Yunus Yoshimoto Social Action Company, Addresses Social Tech Summit and Social Business Forum Osaka

Yunus in Japan: Meets Rola, Bangladeshi Japanese Super Model, Launches Yunus Yoshimoto Social Action Company, Addresses Social Tech Summit and Social Business Forum Osaka
Yunus Raises Question “Who Would Rule The World: Human Beings or Artificial Intelligence?”Japan's glamorous super model, actress, singer, TV personality, and author Rola came to meet Nobel Laureate Professor Muhammad Yunus in his hotel while he was on a social busin...

Speaker of German Parliament meets Yunus to Discuss Social Business

Speaker of German Parliament meets Yunus to Discuss Social Business
Press Release (November 8, 2019)President of German Parliament, Wolfgang Schäuble invited Nobel Laureate Professor Muhammad Yunus to have an one-on-one meeting in his office at the Bundestag, in Berlin on November 6 to discuss economic issues related to social business...

Tenth One Young World Summit Held in London - Yunus Urged Youth to Reversing the Environmental Degradation and Wealth Concentration

Tenth One Young World Summit Held in London - Yunus Urged Youth to Reversing the Environmental Degradation and Wealth Concentration
Press Release (October 29, 2019)Nobel Laureate Professor Muhammad Yunus and Her Royal Highness Meghan Markle, Duchess of Sussex together on stage during the opening ceremony of the One Young World summit at the Royal Albert Hall, in London on 22 October 2019. The event ...

Innovate Together to Achieve SDGs & Climate Actions Through Social Business

Innovate Together to Achieve SDGs & Climate Actions Through Social Business
Press Release (04 October, 2019)Call From UN High-Level Side Event on Social BusinessCaption for Photo 1: Nobel Laureate Professor Muhammad Yunus launching the new logo of Global Committee on Social Business for Sustainable Development Goals with fellow VIP members of t...

Report of Commission on Modern Day Slavery Launched in UN.

Report of Commission on Modern Day Slavery Launched in UN.
Press Release (30 September, 2019)Co-Convenor Yunus calls for Ensuring Zero Financial Exclusion by Creating Social Business Banks for the Poor"Financial sector leaders must work not just to address modern slavery and human trafficking at the margins, but also by rethink...

Old Roads Can Only Take Us to Old Destination - Yunus’s Message to Niti Aayog, India’s Highest Policy Think Tank

Old Roads Can Only Take Us to Old Destination -  Yunus’s Message to Niti Aayog, India’s Highest Policy Think Tank
Press Release ( September 18, 2019)Delhi, September 16:Caption for Photo 1: Nobel Laureate Professor Muhammad Yunus at the 20th Anniversary of the Sa-Dhan, the Association of microfinance institutions of India, addressing the audience of 500 as the Chief Guest.During hi...

Yunus Opens Grameen China Branch in Shenzhen, China

Yunus Opens Grameen China Branch in Shenzhen,  China
Yunus Centre Press Release (29 July, 2019)Caption for Photo: Nobel Laureate Professor Muhammad Yunus inaugurated the opening ceremony of Grameen China’s branch in the Futian district in Shenzhen, China on July 27, 2019. This is the third branch under the collabor...