X

Type keywords like Social Business, Grameen Bank etc.

মাননীয় প্রধানমন্ত্রী কর্তৃক প্রফেসর ইউনূসের বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগসমূহের জবাব

মাননীয় প্রধানমন্ত্রী কর্তৃক প্রফেসর ইউনূসের বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগসমূহের জবাব

 

সম্প্রতি (জুন ২০২২) মাননীয় প্রধানমন্ত্রী নোবেল লরিয়েট প্রফেসর মুহাম্মদ ইউনূসের বিরুদ্ধে কিছু গুরুতর  অভিযোগ উত্থাপন করেছেন।

 

এই অভিযোগ গুলির অনেক গুলিই কয়েক বছর আগেও  করা হয়েছিল এবং আমরা তখন এগুলির জবাবও দিয়েছিলাম।

 

যেহেতু মাননীয় প্রধানমন্ত্রী একই অভিযোগ আবারও করছেন এবং এর সঙ্গে নতুন আরো অভিযোগ  যুক্তকরেছেন, সাংবাদিকবৃন্দ এবং অন্যরাও এ বিষয়ে আমাদের বক্তব্য জানতে চাচ্ছেন, তাই এগুলির জবাবও আবার দেবারপ্রয়োজন হয়েছে  বলে আমাদের নিকট মনে হচ্ছে যাতে এর মাধ্যমে জনগণ প্রকৃত তথ্য জানতে পারেন। আমরা আমাদের বক্তব্য নীচে তুলে ধরলাম। 

 

অভিযোগঃ

গ্রামীণ ব্যাংক একটা ব্যাংক, তার যিনি এমডি তিনি হচ্ছেন ডক্টর ইউনূস। আইনমত তার ৬০ বছর বয়স পর্যন্ত এমডিথাকা যায়। বেআইনিভাবে সে ৭০-৭১ বছর বয়স পর্যন্ত তার যখন বয়স তখন সে এমডি ছিল। স্বাভাবিকভাবে বাংলাদেশব্যাংক তাকে নোটিশ দেয়। কিন্তু তাকে কিন্তু কোন অপমান করা হয়নি। আমাদের সাবেক অর্থমন্ত্রী মুহিত সাহেব এবংউপদেষ্টা গওহর রিজভী সাহেব তাকে প্রস্তাব দেয় যে, আপনি গ্রামীণ ব্যাংকের উপদেষ্টা হয়ে যান। উপদেষ্টা ইমিরেটাসহিসেবে আপনাকে আমরা মর্যাদা দিব। কিন্তু উনি ওই এমডিই উনাকে থাকতে হবে। এখন একজন এমডি ব্যাংকের, তারতো বাইরে গেলে জিও নিতে হয়, সে তো জিও নেয়নি কোনদিন। বরং আমরাও তাকে অনেক বেশী সুযোগ দিয়েছি ।

 

আমাদের জবাব:

শুরুতেই পরিস্কার করা প্রয়োজন যে, গ্রামীণ ব্যাংক এমন একটি ব্যাংক যার ৭৫ শতাংশ শেয়ারের মালিক এর ঋণগ্রহীতারা। একটি আলাদা আইনের মাধ্যমে কিছু অনন্য বৈশিষ্ট্য সন্নিবেশ করে গ্রামীণ ব্যাংক প্রতিষ্ঠা করা হয়েছিলো, ফলে অন্যান্য সরকারি ও বেসরকারি ব্যাংক এর সাথে এর পার্থক্য আছে।

 

গ্রামীণ ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক নিয়োগ দেয়া হয় এর পরিচালনা পরিষদ কর্তৃক নির্ধারিত শর্তে একটি চুক্তির অধীনে। এই নিয়োগের জন্য কোনো বয়সসীমা আইনে বা পরিচালনা পর্ষদের সিদ্ধান্তে উল্লেখ ছিলো না।

 

প্রফেসর ইউনূস ৬০ বছর বয়সে পদার্পণ করলে তিনি স্বতঃপ্রণোদিত হয়ে পরিচালনা পরিষদকে জানান যে, যেহেতু তাঁর বয়স ৬০ বছর হয়েছে তাঁরা একজন নতুন ব্যবস্থাপনা পরিচালক নিয়োগের বিষয়টি বিবেচনা করতে পারেন। পরিচালনা পরিষদ অন্য কোনোরূপ সিদ্ধান্ত না হওয়া পর্যন্ত তাঁকেই দায়িত্ব পালন করে যেতে বলেন। পরিচালনা পরিষদ তাঁর বর্তমান নিয়োগের মেয়াদ শেষ হবার পর তাঁকেই ব্যবস্থাপনা পরিচালক হিসেবে পুনঃনিয়োগ প্রদান করেন। সে সময় তাঁর বয়স ছিল ৬১ বছর ৬ মাস। বাংলাদেশ ব্যাংক তাদের নিয়মিত পরিদর্শন প্রতিবেদনগুলির একটিতে এ বিষয়ে পর্যবেক্ষণ দিলে গ্রামীণ ব্যাংক বিষয়টি ব্যাখা করে। ফলে বাংলাদেশ ব্যাংকের পরবর্তি প্রতিবেদনে এ বিষয়ে আর কোন পর্যবেক্ষণ করা হয়নি। 

 

জিও বিষয়ে বলতে হয়, বিদেশ ভ্রমণের জন্য তাঁকে কখনো জিও নিতে হয়নি কারণ তিনি সরকারী কর্মচারী ছিলেন না। এব্যাপারে সরকার কোনো সময় আপত্তি তোলেনি।

 

যখন ২০১১ সালে এ বিষয়টি নিয়ে প্রশ্ন তোলা হলো এবং প্রফেসর ইউনূসকে ব্যবস্থাপনা পরিচালকের পদ থেকে পদত্যাগ করতে বলা হলো তখন ব্যাংকটির মৌলিক আইনী মর্যাদা হুমকির মুখে পড়ে গেল যা প্রফেসর ইউনূস ক্রমাগতভাবে সকল সরকারের সমর্থন নিয়েই গড়ে তুলেছিলেন। এখন অপসারণের নির্দেশের কারণে সম্পূর্ণ নতুন একটি পরিস্থিতির সৃষ্টি হলো।

 

তিনি চেয়েছিলেন মহামান্য হাইকোর্ট ব্যাংকটির আইনী মর্যাদা সমুন্নত রাখুন। বিষয়টির আইনগত দিকগুলি পরীক্ষা-নিরীক্ষার জন্য তিনি হাইকোর্টে রীট পিটিশন করেন। প্রফেসর ইউনূস তাঁর ব্যবস্থাপনা পরিচালকের চাকরি রক্ষার জন্য মরিয়া হয়ে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে শত্রুভাবাপন্ন আচরণ করেছেন, যেমনটি মাননীয় প্রধানমন্ত্রী বার বার অভিযোগ করছেন - বিষয়টি মোটেই তা নয়। প্রফেসর ইউনূস যা নিয়ে উদ্বিগ্ন ছিলেন তা ছিল ব্যাংকটির আইনী মর্যাদা রক্ষা। কেননা তিনি সবসময় বিশ্বাস করতেন যে, যে আইনী কাঠামোয় তিনি বিগত সকল সরকারের সহায়তায় গ্রামীণ ব্যাংক গড়ে তুলেছিলেন তা দারিদ্র নিরসনে একটি কার্যকর হাতিয়ার হিসেবে ব্যাংকটিকে সফল করে তুলতে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছে।

 

তাঁর চাকরি বিষয়ে বলতে হয়, প্রফেসর ইউনূস ৬০ বছর বয়সে পদার্পণের পর তিনি কয়েকবারই পদত্যাগ করতে চেয়েছিলেন, কিন্তু পরিচালনা পরিষদ প্রতিবারই তাঁকে দায়িত্ব পালন করে যেতে বলেছিলেন।

 

২০১০ সালে প্রফেসর ইউনূস তাঁর একজন উত্তরসূরি খোঁজার প্রক্রিয়া শুরু করতে তৎকালীন অর্থমন্ত্রী জনাব এ এম এ মুহিত সাহেবকে অনুরোধ করেছিলেন। যেহেতু তিনি নিজেই একজন যোগ্য উত্তরসূরির কাছে দায়িত্ব হস্তান্তর করে ব্যবস্থাপনা পরিচালকের পদ ছেড়ে দিতে চাইছিলেন।

 

অর্থমন্ত্রী জনাব মুহিতকে লেখা প্রফেসর ইউনূসের এই চিঠি সে সময়ে দেশের সকল সংবাদপত্রে প্রকাশিত হয়েছিল, যেহেতু  মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ব্যবস্থাপনা পরিচালকের পদ আঁকড়ে রাখার জন্য প্রফেসর ইউনূসের বিরুদ্ধে অভিযোগ তুলেছিলেন।

 

এখানে উল্লেখ করা প্রয়োজন যে, প্রফেসর ইউনূসের বয়স ৬০ বছর অতিক্রম করে আওয়ামী লীগ সরকারের প্রথম মেয়াদে ২০০১ সালে। কিন্তু সে সময়ে সরকার কখনোই তাঁর বয়স নিয়ে কোনো প্রশ্ন উত্থাপন করেনি। পরবর্তী সময়ে বাংলাদেশ ব্যাংকও এ-নিয়ে কোনো প্রশ্ন করেনি।

 

প্রফেসর ইউনূস ব্যাংকের আইনী মর্যাদা সমুন্নত রাখতে হাইকোর্টে যান। তিনি মহামান্য হাইকোর্টে একটি রীট পিটিশন দায়ের করেন। ব্যবস্থাপনা পরিচালক হিসেবে তাঁর চাকরি ধরে রাখার সাথে এর কোনো সম্পর্ক নেই।

 

মহামান্য হাইকোর্ট এই কারণ দেখিয়ে প্রফেসর ইউনূসের পিটিশন শুনানির জন্য গ্রহণ করতে অস্বীকৃতি জানান যে, এ বিষয়ে তাঁর কোনো  “Locus Standi”  নেই অর্থাৎ এ বিষয়ে পিটিশন দাখিল করার কোনো এক্তিয়ার তাঁর নেই। এরপর তিনি আপীল বিভাগে যান এবং আপীল বিভাগও একই যুক্তিতে তাঁর আবেদন গ্রহণ করতে অস্বীকৃতি জানান।

 

এরপর প্রফেসর ইউনূস মে ১২, ২০১১ তারিখে গ্রামীণ ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালকের পদ থেকে পদত্যাগ করার সিদ্ধান্ত নেন।

 

অভিযোগঃ

বাংলাদেশ ব্যাংকের নির্দেশ যখন আসলো, ইউনূস তখন বাংলাদেশ ব্যাংকের বিরুদ্ধে এবং আমাদের সরকারের বিরদ্ধে মামলা করলো। কিন্তু প্রত্যেকটা মামলাই সে হেরে গেল কারণ আইন তো তাকে কভার দিতে পারে …  আইন তো তার বয়স কমাতে পারে না। কোর্ট তো আর তার বয়স কমাতে পারে না। হেরে যেয়ে আরও ক্ষেপে গেল। হিলারি ক্লিনটনকে দিয়ে আমাকে ফোন করিয়েছে, টনি  ব্লেয়ারের স্ত্রী  শেরি ব্লেয়ার, তাকে দিয়ে ফোন করিয়েছে, তারপরে একজন  ফ্রান্সের প্রেসিডেন্টের প্রতিনিধি আসছে ... সবাই কি ... ইউনূসকে  ব্যাংকের এমডি রাখতে হবে।

 

মাননীয় স্পীকার, আমি জাতির কাছেই প্রশ্ন করি, ব্যাংকের এমডিতে কি এত মধু ছিল যে ওইটুকু উনার না হলে চলত না? সে তো নোবেল প্রাইজ পেয়েছে। তো আমি জিজ্ঞেস করলাম নোবেল প্রাইজ যে পায় সে তো এমডি পদের জন্য এত লালায়িত কেন? সেটা আমার মনে হয় সকলের একটু চিন্তা করে দেখা উচিৎ।

 

এবং ওয়ার্ল্ড ব্যাংক যাতে টাকাটা বন্ধ করে, তার জন্য বারবার ইমেইল পাঠানো,  হিলারীর সঙ্গে দেখা করা, এর ফাঁকে দিয়ে ইমেইল পাঠানো এবং তার সাথে আমাদের একজন সম্পাদকও খুব ভালভাবে জড়িত ছিল। কাজেই একটা কথা হচ্ছে যে এদের মধ্যে কি কোন দেশপ্রেম আছে?

 

আমাদের জবাব:

গ্রামীণ ব্যাংক থেকে প্রফেসর ইউনূসের অপসারণের সংবাদটি বিশ্বব্যাপী সংবাদে পরিণত হয়েছিল। তবে তা এ কারণে নয় যে তিনি এ পদে থাকতে চেয়েছিলেন। বরং এ কারণে যে বিশ্বব্যাপী গ্রামীণ দর্শন ও এর কর্মপদ্ধতির অনুরাগী ও অনুসরণকারীদের বিশাল কমিউনিটির কাছে এটি ছিল অত্যন্ত অবিশ্বাস্য ও হতবুদ্ধিকর একটি ঘটনা। তাঁরা বিভিন্নভাবে তাঁদের উদ্বেগ প্রকাশ করছিলেন। তাঁরা প্রফেসর ইউনূসকে তাঁর পদে ফিরিয়ে আনার বিষয়টিকে গুরুত্ব দিচ্ছিলেন না, তাঁরা এটা দেখতে চাইছিলেন যে, গ্রামীণ কর্মসূচিগুলির অগ্রযাত্রা অব্যাহত থাকুক। দরিদ্রদের আশার স্থল হিসেবে বিশ্বজুড়ে গ্রামীণকে কী দৃষ্টিতে দেখা হয় এটি ছিল তারই একটি বহিঃপ্রকাশ মাত্র।

 

প্রফেসর ইউনূসকে গ্রামীণ ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালকের পদ থেকে অপসারণের ঘটনায় বিশ্বব্যাপী যে প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি হয় তা একটি  সম্পূর্ণ স্বতন্ত্র  কাহিনী।  দূর্নীতির কারণে পদ্মা সেতুতে অর্থায়ন বন্ধে বিশ্ব ব্যাংকের সতর্কসংকেতের ঘটনা একই সময়ে ঘটেছিল।

 

একই সময়ে চলমান দুটি আলোচনার বিষয়কে মিশিয়ে ফেলে একটা সম্পূর্ণ ভিন্ন কাহিনী সৃষ্টি করা হয়েছে। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী  বলছেন যে, প্রফেসর ইউনূস হিলারী ক্লিনটনের সাথে চক্রান্ত করে বিশ্ব ব্যাংকের উপর চাপ সৃষ্টি করায় পদ্মা সেতুতে বিশ্ব ব্যাংকের অর্থায়ন বন্ধ হয়ে গিয়েছিল।

 

পদ্মা সেতুতে বিশ্ব বাংকের অর্থায়ন বন্ধে প্রফেসর ইউনূস চাপ প্রয়োগ করেছেন এ বিষয়টি প্রথমবার যখন উল্লেখ করা হয় তখনই প্রফেসর ইউনূস এ বিষয়ে একটি সুষ্পষ্ট বক্তব্য দেন। তিনি জোর দিয়ে বলেন যে, পদ্মা সেতু বাংলাদেশের সকল মানুষের দীর্ঘদিনের একটি স্বপ্ন-- এবং তিনিও এস্বপ্নে  বিশ্বাসী। । এই স্বপ্ন বাস্তবায়নে বাধা সৃষ্টির কোনো প্রশ্নই আসে না। প্রফেসর ইউনূস বলেন "আজ পদ্মা সেতুর নির্মাণ সমাপ্ত হওয়ায়  দেশের মানুষ আনন্দে উদ্বেলিত । দেশের সকল মানুষের সঙ্গে আমিও মাননীয় প্রধানমন্ত্রীকে এই ঐতিহাসিক সাফল্যের জন্য অভিনন্দন জানাচ্ছি।

 

এই কাহিনীতে  বলা হয়েছে যে  প্রধানমন্ত্রীর প্রতি বিদ্বেষপরায়ণ হয়ে প্রফেসর ইউনূস পদ্মা সেতুতে অর্থায়ন বন্ধে তাঁর “বিশাল প্রভাব” কাজে লাগিয়েছেন । প্রফেসর ইউনূস বিশ্ব ব্যাংকের উপর সরাসরি চাপ প্রয়োগ না করলেও তিনি তাঁর বন্ধু হিলারী ক্লিনটনের মা ধ্যমে তা করিয়েছেন। অন্য কথায়, বিশ্ব ব্যাংক কর্তৃক চুক্তি বাতিলের ঘটনায় তাঁর কোনো না কোনো সংযোগ নিশ্চয়ই আছে। প্রধানমন্ত্রী আরো বলেছেন যে, একটি নামকরা সংবাদপত্রের এক সম্পাদক অর্থায়ন বন্ধে বিশ্ব ব্যাংকের প্রেসিডেন্টকে প্ররোচিত করতে বিশ্ব ব্যাংক কার্যালয়ে তাঁর সঙ্গে সাক্ষাতও করেছেন। আন্তর্জাতিক সিদ্ধান্ত-গ্রহণের কঠিন জগৎ দুই বন্ধুর খেয়াল-খুশী বা একজন পত্রিকা সম্পাদকের সাক্ষাৎ করতে যাওয়ার উপর নির্ভর করে না। প্রফেসর ইউনূস যত “গুরুত্বপূর্ণ” ব্যক্তিই হোন না কেন, তাঁর যত “প্রভাবশালী বন্ধুই” থাকুক না কেন, একটি ৩০০ কোটি ডলারের প্রকল্প শুধু এ-কারণে বন্ধ হয়ে যেতে পারে না যে, তিনি চাইছিলেন এটা বাতিল হয়ে যাক । অভিযোগের জবাবে আবারো বলতে হচ্ছে যে, প্রফেসর ইউনূস পদ্মা সেতু বিষয়ে বিশ্বব্যাংক বা অন্য কোনো সংস্থা বা ব্যক্তির কাছে কখনও কোনো অভিযোগ বা অনু্যোগ জানাননি। সুতরাং বিষয়টি নিতান্তই কল্পনা প্রসূত।

 

অভিযোগঃ

কিন্তু গরিবের কাছ থেকে প্রায় ৪৭ ভাগ সে ইন্টারেস্ট নিত । এটি হচ্ছে সব থেকে দুর্ভাগ্যের বিষয় ।

 

আমাদের জবাব:

এবক্তব্য  মোটেই সঠিক নয়।ব্যবসা ঋণের উপর গ্রামীণ ব্যাংকের   সুদ বরাবরই ২০% যা একটি ক্রমহ্রাসমান সরল সুদ। এটা কখনো কোন উপলক্ষ্যে বাড়ানো হয়নি। বলা বাহুল্য মাইক্রোক্রেডিট রেগুলেটরী অথরিটি মাইক্রোক্রেডিটের সর্বোচ্চ সুদের অনুমতি দিয়েছে ২৭%। গ্রামীণ ব্যাংক বরাবরই সরকার নির্ধারিত সুদের হার থেকে অনেক কম সুদে ঋণ দিয়ে গেছে। এছাড়া অন্যান্য সুদের হার আরো অনেক কম।

 

গৃহঋণের উপর ৮%, সদস্যদের ছেলে মেয়ের শিক্ষা ঋণের উপর শিক্ষাকালে ০% এবং শিক্ষা সমাপান্তে ৫%, হত- দরিদ্রের জন্য ০%। গ্রামীণ ব্যাংকে ৪৭% সুদ কখনো ছিল না এখনো নেই।

 

তাছাড়া যেকোন ব্যাংকের সুদ আয়ের উপর যে লাভ হয় তার ভাগীদার হন মালিকগণ। গ্রামীণ ব্যাংকের মালিক ২৫% সরকার আর ৭৫% গরীব সদস্যগণ। তাই সরকার ও সদস্যরা নিয়মিত লাভ পেয়ে আসছেন। প্রফেসর ইউনূসের এতে একটা শেয়ারও নেই। তাই ৪৭% সুদ নিয়ে কাউকে ঠকানোর কোন সুযোগই তার নেই!

 

প্রফেসর ইউনূসকে গ্রামীণ ব্যাংক থেকে অপসারণের পরও এই ঋণ-নীতির কোন পরিবর্তন হয়নি।

 

অভিযোগঃ

বরং গ্রামীণ ব্যাংকের যত টাকা, সব কিন্তু সে নিজে খেয়ে গেছে। নইলে একজন ব্যাংকের এমডি এত টাকার মালিক হয় কিভাবে? দেশে-বিদেশে এত বিনিয়োগ করে কিভাবে?

 

আমাদের জবাব:

প্রফেসর ইউনূস গ্রামীণ ব্যাংকের কোনো টাকা “খেয়ে” ফেলেননি। গ্রামীণ ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক হিসেবে তাঁর কর্মকালীন সময়ে তাঁর বেতনের বাইরে তিনি আর কোনো অর্থ ব্যাংক থেকে গ্রহণ করেননি। আন্তর্জাতিক ভ্রমণের জন্যও কোন সময়  তিনি গ্রামীণ ব্যাংকের কোনো টাকা খরচ করেননি। দেশে ও দেশের বাইরে বিনিয়োগ করতে তিনি ব্যাংকের টাকা নিয়েছেন বলে যে দাবী করা হচ্ছে তা সম্পূর্ণ অসত্য।

 

বর্তমান সরকার দেশের সমস্ত ব্যাংকের সকল শাখা থেকে তাঁর ব্যাংক হিসাবগুলি তদন্ত করে দেখতে আদেশ দিয়েছিল। মিডিয়াতে এই আদেশ ব্যাপকভাবে প্রচারিত হয়েছিল। তাঁর ট্যাক্স রিটার্ণসমূহ বহুবার পরীক্ষা করে দেখা হয়েছে এবং এই সংবাদও দেশব্যাপী প্রচার করা হয়েছে। কর্তৃপক্ষ এসব তদন্তে কোনরূপ অনিয়ম কোন কর্তৃপক্ষ খুঁজে পেয়েছে এরকম কোনো সংবাদ আমরা কখনো পাইনি। গ্রামীণ ব্যাংকের অনিয়ম খুঁজে বের করার উদ্দেশ্যে সরকার গঠিত একটি রিভিউ কমিটি ও একটি কমিশন বহু চেষ্টা করেও এধরণের অর্থ অপসারণের কোনো তথ্য বের করতে পারেনি।

 

বাংলাদেশ ব্যাংক নিয়মিতভাবে গ্রামীণ ব্যাংকের সকল হিসাব ও আর্থিক বিষয়াদি নিরীক্ষা করে দেখে। এর কোনো রিপোর্টে প্রফেসর ইউনূস গ্রামীণ ব্যাংক থেকে কোনো টাকা সরিয়েছেন এমন কোনো কথা বলা হয়নি। মিডিয়াতেও এ ধরনের কোনো রিপোর্ট কখনো আসেনি।

 

প্রফেসর ইউনূস নিয়মিতভাবে তাঁর কর পরিশোধ করেন এবং ট্যাক্স রিটার্ণ জমা দেন।

 

 

তাঁর আয়ের উৎস:

প্রফেসর ইউনূসের আয়ের উৎস তিনটি: ১) বিশ্বব্যাপী বিভিন্ন সম্মেলনে বক্তা হিসেবে প্রদত্ত ভাষণের জন্য লেকচার ফি। তিনি পৃথিবীতে সবচেয়ে বেশী ফি প্রাপ্ত বক্তাদের অন্যতম। তাঁর আয়ের প্রধান উৎস এটি। ২) পৃথিবীর ২৫টি ভাষায় প্রকাশিত তাঁর বইগুলির রয়্যালটি। তাঁর বইগুলির মধ্যে কোন কোনটি নিউইয়র্ক টাইমস-এর বেষ্ট সেলার তালিকাভূক্ত। ৩) প্রথম ও দ্বিতীয় উৎস থেকে প্রাপ্ত অর্থ স্থায়ী আমানত হিসেবে রেখে তা থেকে আয়।

 

প্রথম ও দ্বিতীয় উৎস থেকে প্রতিটি প্রাপ্তির তথ্য কর কর্তৃপক্ষের নিকট নিয়মিত জমা দেয়া হয়। সুতরাং তাঁর আয়ের উৎস সম্বন্ধে কিছু না জানার কোনো প্রশ্নই উঠতে পারেনা।

 

তাঁর লেকচার ও বই থেকে প্রাপ্ত সমস্ত আয় তিনি প্রাতিষ্ঠানিক ব্যাংকিং চ্যানেলে দেশে গ্রহণ করেন। ব্যাংকগুলি থেকে পাওয়া এ সংক্রান্ত ডকুমেন্ট কর কর্তৃপক্ষের নিকট জমা দেয়া হয়। ফলে তাঁর আয়ের উৎস সরকারের অজানা একথা একেবারেই সত্য নয়। প্রফেসর ইউনূস তাঁর টাকা ব্যাংকে স্থায়ী আমানত হিসাবে রাখেন। তিনি কখনোই স্টক বা শেয়ারে কোনো রকম বিনিয়োগ করেন না। পৃথিবীর কোথাও কোনো কোম্পানীতে তাঁর কোনো শেয়ার নেই।

 

পৃথিবীর অনেক দেশের সরকার, কর্পোরেশন, ব্যবসা প্রতিষ্ঠান, সমাজসেবী সংগঠন ও ব্যক্তিবর্গ প্রফেসর ইউনূসের দর্শন ও প্রায়োগিক কর্মসূচিতে অনুপ্রাণিত হয়ে পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে বিভিন্ন সামাজিক ব্যবসা সৃষ্টির উদ্যোগ নিয়েছেন। এঁদের অনেকে প্রফেসর ইউনূসের দর্শন ও ব্যবসায়িক কাঠামোর প্রতি তাঁদের সার্বিক ঐকমত্য প্রকাশ করতে নিজেদের প্রতিষ্ঠানের নামের সঙ্গে “ইউনূস” বা “গ্রামীণ” নাম যোগ করে পরিচিতি দেন। তাঁদের ব্যবসায়ে এই নামগুলির ব্যবহার শুধু ইউনূসের দর্শনের প্রতি উদ্যোক্তাদের একনিষ্ঠতার   বহিঃপ্রকাশমাত্র। এগুলি কোনোভাবেই এই ব্যবসাগুলিতে ইউনূস বা গ্রামীণের মালিকানার পরিচয় বহন করে না। তাঁদের ব্যবসাগুলি তাঁদের স্ব-স্ব দেশের আইনের অধীনে প্রতিষ্ঠিত। এদের অর্থায়নও হয় উদ্যোক্তাদের নিজস্ব পরিকল্পনা অনুযায়ী। এসব ব্যবসার কোনোটিতেই প্রফেসর ইউনূসের কোনো বিনিয়োগ নেই। এই ব্যবসাগুলির কোনো কোনোটি পরবর্তীতে মাল্টি-বিলিয়ন ডলারের ব্যবসায়ে পরিণত হয়েছে। তারা তাদের সফলতার কথা গর্বের সাথে বিশ্ববাসীর কাছে যখন তুলে ধরে তখন তাদের সামাজিক সমস্যাগুলি সমাধানের পথ বের করার উদ্যোগে বাংলাদেশ থেকে পাওয়া তাত্তিক কাঠামো এবং অভিজ্ঞতার জন্য সব সময় কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করে।

 

প্রফেসর ইউনূস বিশ্বব্যাপী তাঁর দর্শন ছড়িয়ে দেন, টাকা নয়। তিনি অনেকবার বলেছেন যে, পৃথিবীর কোথাও কোনো কোম্পানীতে তাঁর কোনো শেয়ার নেই, পৃথিবীর কোথাও কোন ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠানে তিনি কোনো বিনিয়োগ করেননি।

 

 

অভিযোগ:

এবং ক্লিনটন ফাউন্ডেশনে তিন লক্ষ ডলার সে কিভাবে অনুদান দেয়? কার টাকা দিল? কিভাবে দিল? সেটা তো কেউ খোঁজ করল না!

 

আমাদের জবাব:

প্রফেসর ইউনূস কখনোই ক্লিনটন ফাউন্ডেশনকে কোনো অংকের কোনো অনুদান দেননি। অভিযোগটি সম্পূর্ণ ভিত্তিহীন। মাননীয় প্রধানমন্ত্রীকে ভুল তথ্য দেয়া হয়েছে।

 

অভিযোগ:

এবং গ্রামীণফোন যখন নেন তখন বলেছিল যে গ্রামীণফোন থেকে যে লভ্যাংশ সেটা গ্রামীণ ব্যাংকে যাবে এবং ওইটা দিয়ে ব্যাংক চলবে। খোঁজ নিয়ে দেখবেন আজ পর্যন্ত কোনদিন গ্রামীণফোনের একটি  টাকাও সে গ্রামীণ ব্যাংকে দেয় নাই।

 

আমাদের জবাব:

গ্রামীণফোনের পক্ষ থেকে গ্রামীণ ব্যাংককে লভ্যাংশ প্রদান করার এ ধরনের কোনো কথা ছিলনা। গ্র্রামীণ ব্যাংক এই জয়েন্ট ভেঞ্চারের কোন পক্ষ ছিলনা।

 

এই জয়েন্ট ভেঞ্চার গ্রামীণফোনের প্রধান অংশীদার নরওয়ের কোম্পানী টেলিনর, যা নরওয়ে সরকারের মালিকানাধীন। গ্রামীণফোনের দ্বিতীয় বৃহত্তম অংশীদার গ্রামীণ টেলিকম যা কোম্পানী আইনের ২৮ ধারায় নিবন্ধনকৃত একটি অলাভজনক কোম্পানী যার কোনো ব্যক্তি মালিক নেই। গ্রামীণ ব্যাংক ও গ্রামীণ টেলিকম দুইটি পৃথক আইনগত সত্তা। গ্রামীণফোন একটি পাবলিকলি লিস্টেড (publicly listed) কোম্পানী।

 

গ্রামীণ টেলিকম সরোস ফাউন্ডেশনের নিকট থেকে ধারকৃত টাকায় গ্রামীণফোনে বিনিয়োগ করেছিল।

 

প্রফেসর ইউনূস কোনোকালেই গ্রামীণফোনের কোনো শেয়ারের মালিক ছিলেন না, এখনো তাঁর কোনো শেয়ার নেই। শেয়ার কেনার কোনো ইচ্ছাও তাঁর কখনো ছিলনা।

 

গ্রামীণ টেলিকম দরিদ্র নারী উদ্যোক্তাদের কাছে গ্রামাঞ্চলে ফোন সার্ভিস বিক্রি করতে “পল্লী ফোন কর্মসূচি” চালু করেছিল। পৃথিবীর ইতিহাসে গ্রামীণ টেলিকমই প্রথম কোম্পানী যা দরিদ্র মানুষের কাছে, বিশেষ করে দরিদ্র মহিলাদের কাছে এবং গ্রামাঞ্চলে টেলিফোন সেবা পৌঁছে দিয়েছে। “পল্লী ফোন কর্মসূচি” থেকে লক্ষক্ষ লক্ষ মহিলা উল্লেখযোগ্য আয় করতে পেরেছেন। কর্মসূচিটির তাৎপর্যের কারণে এটি প্রযুক্তির ইতিহাসে একটি উল্লেখযোগ্য মাইলফলক হিসেবে স্বীকৃতি পেয়েছে। গ্রামীণ টেলিকমের “পল্লী ফোন কর্মসূচি” গ্লাসগো  প্রযুক্তি জাদুঘরে প্রদর্শিত হচ্ছে।  এই প্রযুক্তি জাদুঘরে স্থান পাওয়াটা জাতি হিসেবে আমাদের জন্য গর্বের বিষয়। গ্রামীণফোনের যুগান্তকারী কাজের ফলস্বরূপ দেশের সর্বত্র এমনটি দরিদ্রতম মানুষটির কাছেও টেলিফোন সেবা পৌঁছে গেছে।

 

অভিযোগ:

যখন আমরা ডিজিটাল সিস্টেম নিয়ে এলাম। টেলিকমিউনিকেশন, আগে সব এনালগ ছিল এবং মোবাইল ফোনের ব্যবসা দিয়ে দিলাম প্রাইভেট সেক্টরে, তাকেও একটা মোবাইল ফোনের ব্যবসা দেওয়া হলো। আরও যে দুটো আমরা দিয়েছিলাম তাদের আমরা বেশি সুযোগ দেইনি কিন্তু গ্রামীণ ফোনের জন্য রেলওয়ে অপটিক ফাইবার ক্যাবল ব্যবহার করার সুযোগ আমরা দিয়েছিলাম।

 

আমাদের জবাব:

রেলওয়েকে তৎকালীণ সময়ে ফাইবার অপটিকস নরওয়ে অনুদান হিসেবে দিয়েছিল। রেলওয়ে তার পূর্ণাংগ ব্যবহার করতে পারছিল না। অথচ জনবল ও ক্যাবল রক্ষণাবেক্ষণের জন্য প্রতিনিয়ত বিপুল খরচ চালিয়ে যেতে হচ্ছিলো। রেলওয়ে খরচ সাশ্রয়ের জন্য তখন গ্রামীণফোনের সাথে একটা লীজ চুক্তি করে।এটা একটা বাণিজ্যিক চুক্তি। এই চুক্তির মাধ্যমে রেলওয়ের একাজে নিয়োজিত সকল লোকবলের দায়িত্ব গ্রামীণফোনের নিকট ন্যস্ত করে দেয়া হয়।

 

গ্রামীণফোন দেশের সবচেয়ে বৃহৎ মোবাইল  ফোন কোম্পানি। ২৫ বছর পরে সব দেখে এখন সবাই বলবে  গ্রামীণ ফোনকে লাইসেন্স দিয়ে সরকার সঠিক কাজ করেছে। লাইসেন্স ন্যায্যত তাদেরই  প্রাপ্য ছিল।

 

অভিযোগ:

ড. মুহাম্মদ ইউনূস কোনো একটি ফাউন্ডেশনে ৬ মিলিয়ন মার্কিন ডলার অর্থ দিয়েছিলেন- এক আওয়ামী লীগ নেতা ও সংসদ সদস্য সম্প্রতি এমন বক্তব্য দিয়েছেন। এ বিষয়ে তদন্ত হবে কি না- এমন প্রশ্নে প্রধানমন্ত্রী বলেন, আপনারা সাংবাদিক। আপনারাও তো তদন্ত করতে পারেন, কিন্তু করেন না। আপনারা তদন্ত করুন। একজন ব্যাংকের এমডি হয়ে কোনো ফাউন্ডেশনে এত অর্থ কীভাবে দেন? আপনারা অনুসন্ধান করুন। আমি (তদন্ত) করতে গেলে তো আবার বলবেন প্রতিহিংসাপরায়ণ। তাই আপনারা খুঁজে বের করলেই ভালো হয়। ড. ইউনূসের আর্থিক অনিয়ম নিয়ে আরও অভিযোগ রয়েছে জানিয়ে তিনি বলেন, কোন ব্যাংকে কত টাকা আছে, কোন ব্যাংক থেকে কত টাকা সরিয়ে নিয়েছেন, সেগুলো খুঁজে বের করুন। কোনো ফাউন্ডেশন বা ট্রাস্ট করে তার টাকা কীভাবে ব্যক্তিগত হিসাবে চলে যায়? এক চেকে ৬ কোটি টাকা তুলে নিয়ে ব্যক্তিগত অ্যাকাউন্টে জমা করে, সেই টাকা উধাও (ভ্যানিশ) করে দেওয়া হলো! এসব বিষয় নিয়ে অনুসন্ধানের আহ্বান জানিয়ে শেখ হাসিনা বলেন, বেশিদিন আগের কথা তো নয়। ২০২০ সালের কথা। অ্যাকাউন্ট নম্বর তো আছেই। আপনারা অনুসন্ধান করুন, তথ্য বের করুন। তারপর ব্যবস্থা নেওয়ার প্রয়োজন হলে আমরা নেব।

 

আমাদের জবাব:

কোনো ট্রাস্ট থেকে ৬ কোটি টাকা বা অন্য কোনো অংকের টাকা ২০২০ সালে বা অন্য কোনো সময়  প্রফেসর ইউনূসের ব্যক্তিগত অ্যাকাউন্টে জমা করা হয়নি। তিনি কোন ফাউন্ডেশনে ৬ মিলিয়ন ডলার অনুদানও দেননি। এটা সম্পূর্ণ একটা কল্পনাপ্রসূত এবং মানহানিকর অভিযোগ।

 

আগেই বলা হয়েছে, সরকার ইতোমধ্যে ব্যাংকগুলো থেকে প্রফেসর ইউনূসের ব্যাংকিং বিষয়ক তথ্য সংগ্রহ করেছে তাই সকল তথ্যই সরকারের কাছে আছে।

----

Related

Yunus Never Convicted of Tax Evasion. No such case existed. - Rejoinder to Law Minister's statement in Reuters' news

Press Release - 12 June 2024 In a news report carried by Reuters globally on June 11, 2024. The statement made by Hon’ble Minister for Law, Justice and Parliamentary Affairs of Bangladesh Mr. Anisul Huq MP   is completely baseless and defamatory. He is quote...

Celebrating a Decade of Impact: The GENKI Program of Grameen Euglena Marks Its 10th Anniversary

Celebrating a Decade of Impact: The GENKI Program of Grameen Euglena Marks Its 10th Anniversary
Press Release   Dhaka, Bangladesh, May 28, 2024 — Euglena Co., Ltd. proudly celebrated the 10th anniversary of the GENKI Program, an initiative of Grameen Euglena a joint venture between Euglena Co., Ltd. of Japan and Grameen Krishi foundation, dedicated to...

গ্রামীণ ইউগ্লেনার  GENKI প্রোগ্রাম এর এক দশক উদযাপন

গ্রামীণ ইউগ্লেনার  GENKI প্রোগ্রাম এর এক দশক উদযাপন
প্রেস রিলিজ ঢাকা, বাংলাদেশ, ০৬ জুন ২০২৪ঃ গত ২৮ মে, ২০২৪ বিভিন্ন স্কুলের ছাত্র শিক্ষক, বিভিন্ন প্রতিষ্ঠ...

Grameen America Plans to Invest $40 Billion For Underserved Women of USA In Next Ten Years

Grameen America Plans to Invest $40 Billion For Underserved Women of USA In Next Ten Years
Yunus Centre Press Release – May 28, 2024   On May 20, 2024, Grameen America Inc. (GAI), the fastest-growing nonprofit microfinance organization in the United States of America, announced the opening of its new branch  in Phoenix, Arizona, with signifi...

Yunus on European Social Business Tour: Explaining Autonomous Intelligence, Social Procurement, Nobin Entrepreneurs & Paris Olympics

Yunus on European Social Business Tour:  Explaining Autonomous Intelligence, Social Procurement, Nobin Entrepreneurs & Paris Olympics
Yunus Centre Press Release – May 19, 2024   Nobel laureate Professor Yunus was hosted by the Fondazione Milano Cortina, which organized an event titled "Meet the Partners," with the well-known global brands supporting the Milano Cortina Winter Olympics 2026...

Yunus Meets President of Italian Republic Sergio Mattarella

Yunus Meets President of Italian Republic Sergio Mattarella
Yunus Centre Press Release – May 16, 2024   On May 11, 2024, Nobel Laureate Professor Muhammad Yunus had an audience with the President of Italian Republic Sergio Mattarella at the Presidential Palace along with his fellow Nobel Peace Prizes Laureates from ...

Yunus Meets Pope Francis: urges immediate action on Palestine and all conflicts across the world

Yunus Meets Pope Francis: urges immediate action on Palestine and all conflicts across the world
Yunus Centre Press Release – May 15, 2024   Nobel Laureate Professor Muhammad Yunus met with the Pope and discussed global challenges at the Vatican City on May 11, 2024. Professor Yunus was the co-chair of the Peace Round Table of the second World Meeting ...

Yunus Meets Pope and Co-Chairs World Summit on Human Fraternity

Yunus Meets Pope and Co-Chairs World Summit on Human Fraternity
Yunus Centre Press Release – May 14, 2024   Thirty Nobel Peace Prize winners, scientists, economists, mayors, doctors, managers, workers, sports champions and ordinary citizens gathered on May 10-11 for the second World Meeting on Human Fraternity, a confer...

পোপের আমন্ত্রণে মানব ভ্রাতৃত্ব বিষয়ক বিশ্ব সম্মেলনে ইউনূসের যোগদান

পোপের আমন্ত্রণে মানব ভ্রাতৃত্ব বিষয়ক বিশ্ব সম্মেলনে ইউনূসের যোগদান
ইউনূস সেন্টার প্রেস রিলিজ – মে ১৪, ২০২৪   ত্রিশজন নোবেল শান্তি পুরস্কার বিজয়ী, বিজ্ঞানী, অর্থনীতিব...