Yunus Centre protests the Statement of Finance Minister at National Parliament regarding the Grameen Bank and Professor Yunus

button bangla

 

On 26 June 2013, Dr. Abul Maal Abdul Muhith made a statement about Grameen Bank and Professor Yunus in the National Parliament. The people of the country were shocked by the statement of the Honorable Finance Minister. No one expected this kind of false statement against a respected person from the country’s Finance Minister in the Parliament.

The following are responses to the Finance Minister’s statement:

muhit-yunus1.0 Honorable Finance Minister’s statement: All the Grameen social businesses are owned by Yunus
Response: The statement is completely false. All the social businesses carrying the Grameen name are not owned by Dr. Yunus. Professor Yunus has repeatedly said and at various times through newspapers and the media that he does not own
a single share in any businesses. If Honorable Minister is able to show evidence of any instance of Professor Yunus owning a single or more personal shares in any company, there would be no reason to protest the Finance Minister’s statement. But if he is unable to produce such evidence, then the Finance Minister should apologize for making false assertion against a respected person.

2.0 Honorable Finance Minister’s statement: Dr. Yunus has taken dividends amounting to some thousand crores taka from Grameen Phone.
Response: The Finance Minister should explain to the Parliament, and so to the people of the country, how Professor Yunus could receive a few thousand crore takas in dividends from an institution where he does not own any shares nor even shares bought from the stock market.

3.0 Honorable Finance Minister’s statement: Three brothers of Professor Yunus were the directors of the companies. The rest, who do not take any profits, were hired by him.
Response: Only two of Professor Yunus’ brothers live in Dhaka. They are Professor Muhammad Ibrahim and Mr Muhammad Jahangir. Muhammad Jahangir is not involved on the board of any company. Professor Ibrahim is a member of board of directors of four Grameen named companies because of his knowledge and experience. All four of these institutions are non-profit voluntary institutions where there is no scope for the board of directors to receive any financial benefit. None of Professor Yunus’ other brothers are involved in any board of directors of any Grameen-named institution.

4.0 Honorable Finance Minister’s statement: Mr. Yunus couldn’t give time, board meetings could not take place, decisions could not be made.
Response: The same number of board meetings that took place in Grameen Bank each year during the time of Professor Yunus, has taken place every year since the departure of Professor Yunus. The same amount of time that was spent on the board meetings before his departure, the very same amount of time is spent on the board meetings now.

5.0 Honorable Finance Minister’s statement: Mr. Yunus was Managing Director illegally. Mr. Yunus’s law states that he should retire at the age of 60 years. Board said that he should be Managing Director for an undefined period of time. Bangladesh Bank reminded him every year during their audit of GB, that he could no longer remain as MD as he is 60 years old.
Response: This statement is completely false. Before he turned 60 in 1999, during the 52nd board meeting of Grameen Bank that took place in July, Professor Yunus voluntarily informed the board of his retirement as Managing Director. During that meeting, and in accordance with Section 14 of Grameen Bank Ordinance, the board unanimously took the decision that “Until such date that the board decides otherwise, Professor Muhammad Yunus will remain as the Managing Director.”

In an inspection audit report of Bangladesh Bank in 2000 (based on audit of the year ending December 1999) an objection was raised that permission had not been sought GB for Professor Yunus’ appointment as Managing Director. In response to this objection, Grameen Bank sent a response to Bangladesh Bank on June 20, 2001 that approval had in fact been given in 1990 by the Bangladesh Bank on the Managing Director’s appointment. In 15 January 2002, a joint meeting took place between three representatives from Bangladesh Bank and three representatives from Grameen Bank on this issue. On the basis of the decisions of this joint meeting, Grameen Bank sent another follow up report, together with the relevant documents about the appointment of Managing Director, to the Bangladesh Bank. After reviewing the above report and documents, Bangladesh Bank considered the issue of appointment of Grameen Bank’s Managing Director as having been resolved. It should be mentioned that Bangladesh Bank inspects Grameen Bank every year but no further objection or question was raised about the Managing Director having crossed 60 years of age. Even on this issue, the Honorable Finance Minister’s statement is incorrect. It is clear from the minutes of the joint meeting that the Bangladesh Bank had accepted Professor Yunus continuing his responsibilities as Managing Director of Grameen Bank, even after he had crossed the age of 60. Thus, there is no question of Professor Yunus remaining as Managing Director of Grameen Bank illegally.

6.0 Honorable Finance Minister’s Statement: When Dr Yunus was Managing Director of Grameen Bank, his contribution through microcredit projects to the banking sector of the country was worth sixteen thousand crore taka. This amount has increased to thirty three thousand crore taka until last December.
Response: Does the Honorable Finance Minister mean to say that after Dr Yunus left the post of Managing Director, huge activities have been created in the microcredit sector of the country? It should not be difficult for anyone to understand that microfinance’s contribution to the banking sector would not be affected by Professor Yunus remaining or not remaining as Managing Director of GB. When Dr Yunus retired from Grameen Bank (April 2011), Grameen Bank’s loans outstanding amounted to 7,073 crore takas. Currently ( May 2013 ), Grameen Bank’s loans outstanding total 8,300 crore takas. This growth is part of Grameen Bank’s regular activity and operation.

7.0 Honorable Finance Minister’s statement: I think Grameen Bank has 22,000 branches.
Response: This information is incorrect. Till May, 2013 the number of GB branches is 2,567. The number is only 11.6% of the figure given by him.

8.0: Honorable Finance Minister’s Statement: I called Dr Yunus and told him to resign from the MD post. I will make you an Emeritus Board Member. Dr. Yunus said he would think about it. After that, I appointed a new chairman for Grameen Bank. Then Dr. Yunus said that if he leaves the post of MD, the bank will shut down.
Response: Dr. Yunus had tried to step down from Grameen Bank many times on several occasions. Each time it created a panicky situation among the Grameen Bank employees and borrowers. For this reason and in order to bring a smooth transition of responsibility, he met with the Finance Minster several times and sought his cooperation on this matter. On March 15, 2010, Dr. Yunus gave a hand-written letter to the Finance Minister stating his intentions (copy of letter attached). He took the letter to the Finance Minister’s home himself and read out the letter to him. Honorable Finance Minister said that he agreed with the contents of the letter and would proceed in the way proposed. Later when the Finance Minister had not taken any initiative on this issue, Professor Yunus called him by telephone and reminded him about this issue. The Finance Minister said he remembered and would proceed in the way discussed. But he did not proceed in that way, instead suddenly demanded Professor Yunus’ resignation.

9.0 Honorable Finance Minister Statement: Grameen Telecom took loan from an institution Soros with a guarantee from the board of Grameen Bank
Response: This is a false statement. Grameen Bank did not provide any guarantee from Grameen Telecom's loan from Soros.

10.0 Honorable Finance Minister’s Statement: Grameen Bank faced huge damages in the 1998 floods. Then government assisted by giving 400 crore takas.
Response: This is a false statement. Government did not provide assistance to Grameen Bank for damages to Grameen Bank during the 1998 floods. Rather, Grameen Bank raised 200 crore taka by selling bonds to a commercial bank at 10% interest for a period of three years. The law required that the government provide a guarantee for this purpose. Grameen Bank repaid the 200 crores in due time.

11.0 Grameen Danone
Response : Honorable Finance Minister does not have a clear understanding of social business as a result of which he has made statements about social business that do not make sense. He has mixed up “Social Business” with “Social Investment”. Explanations about what social business is have been given before to protest what he said about social business in the past.
He has said that Grameen Danone has started its business as a non-profit company and later turned into a profit oriented company. This information is incorrect. Grameen Danone has been registered as a profit-oriented company since the beginning and remains the same. There has been no change in its legal structure. All the Social Business institutions are profit oriented companies. The only characteristic is that the owners don’t receive any dividends, they only receive the investment amount back.

12.0 Grameen Phone:
Honorable Minister Statement: Dr. Yunus claims that Grameen Bank does not have any ownership relationship with Grameen Phone. This is false, false, false.
Response: Dr. Yunus maintains that Grameen Bank does not have any ownership relationship with Grameen Phone – this is true, true, true! Why the need for a war of words on this issue?

Government can obtain the list of names of the shareholders of Grameen Phone from the appropriate government agency and resolve this issue immediately. It is not a secret issue.

Grameen Bank not only does not have any ownership relationship with Grameen Phone, it does not have any ownership relationship with any company carrying the Grameen name. A chaotic situation has unnecessarily been created by summoning all kinds of documents of all Grameen-named companies, to establish that there is an ownership relationship with Grameen Bank.

It has been repeated many times that that these institutions are all registered with the relevant government agency as independent companies. Most of the institutions do not have any owners. How could Grameen Bank be an owner of an institution which does not have any ownership structure? These issues have been explained in detail through booklets published before by the Yunus Centre. These issues have been explained to the government several times.

The names and addresses of the owners of those Grameen institutions that do have owners, are available with the relevant government departments. It is not necessary to check bags and bags of documents from last 25 years of 50 organizations to establish the ownership issue.

The letter written by Prof. Muhammad Yunus to Honorable Finance Minister Dr. Abul Maal Abdul Muhith (25th March, 2010)

------------------

button english

 

গত ২৬ জুন ২০১৩ তারিখে জাতীয় সংসদে গ্রামীণ ব্যাংক ও প্রফেসর ইউনূসের বিষয়ে অর্থমন্ত্রী ড. আবুল মাল আবদুল মুহিত কিছু বক্তব্য দিয়েছেন। মাননীয় অর্থমন্ত্রীর বক্তব্যে দেশের মানুষ অবাক হয়েছে। দেশের অর্থমন্ত্রীর নিকট থেকে একজন সম্মানিত ব্যক্তির বিরুদ্ধে সংসদে দাঁড়িয়ে এধরনের মিথ্যা তথ্য কেউ আশা করে না। অর্থমন্ত্রীর বক্তব্যের পরিপ্রেক্ষিতে নিম্নলিখিত বক্তব্য তুলে ধরা হলো।

muhit-yunus১.০ মাননীয় অর্থমন্ত্রীর বক্তব্যঃ গ্রামীণ সামাজিক ব্যবসার প্রতিষ্ঠানগুলো সবই ইউনূসের ব্যক্তিগত প্রতিষ্ঠান।
জবাবঃ বক্তব্যটি সম্পূর্ণ মিথ্যা। গ্রামীণ নামধারী সামাজিক ব্যবসা প্রতিষ্ঠানগুলি ডঃ ইউনূসের ব্যক্তিগত সম্পত্তি নয়। প্রফেসর ইউনূস বিভিন্ন সময়ে পত্র পত্রিকার মারফৎ বহুবার বলেছেন কোন ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠানে তাঁর ব্যক্তিগত একটি শেয়ারও নেই। মাননীয় অর্থমন্ত্রী যদি একটি কোম্পানীও দেখাতে পারেন যেখানে ডঃ ইউনূসের এক বা একাধিক ব্যক্তিগত শেয়ার আছে তাহলে মন্ত্রী মহোদয়ের বক্তব্যের প্রতিবাদ করার আর কোন প্রয়োজনীয়তা থাকবে না। যদি তা দেখাতে না-পারেন তাহলে সংসদে একজন সম্মানিত ব্যক্তির বিরুদ্ধে মিথ্যা বক্তব্য দেয়ার জন্য মন্ত্রী মহোদয়ের ক্ষমা চাওয়া উচিত হবে।

২.০ মাননীয় অর্থমন্ত্রীর বক্তব্যঃ ডঃ ইউনূস গ্রামীণফোন থেকে কয়েক হাজার কোটি টাকা ডিভিডেন্ড নিয়েছেন।
জবাবঃ যে প্রতিষ্ঠানে ডঃ ইউনূসের কোন শেয়ার নেই, এমন কি স্টক মার্কেট থেকে কেনা শেয়ারও নেই, সেখান থেকে ডঃ ইউনূস কীভাবে কয়েক হাজার কোটি টাকা ডিভিডেন্ড নিলেন সেটা মাননীয় অর্থমন্ত্রীকে সংসদের নিকট, এবং তার মাধ্যমে জাতির নিকট ব্যাখ্যা করে বলতে হবে। অথবা মিথ্যা বলার জন্য ক্ষমা চাইতে হবে।

৩.০ মাননীয় অর্থমন্ত্রীর বক্তব্যঃ ইউনূস সাহেবের কোম্পানিগুলোর পরিচালক ছিলেন তাঁর তিন ভাই। বাকি কয়েকজন উনি নিয়োগ করেন, যাঁরা লভ্যাংশ নেন না।
জবাবঃ ডঃ ইউনূসের মাত্র দুই ভাই ঢাকাতে থাকেন। তাঁরা হলেন প্রফেসর মুহাম্মদ ইব্রাহীম, এবং জনাব মুহাম্মদ জাহাঙ্গীর। মুহাম্মদ জাহাঙ্গীর ডঃ ইউনূসের কোনো প্রতিষ্ঠানের কোন পরিচালনা পর্ষদের সঙ্গে যুক্ত নন। প্রফেসর ইব্রাহীম তাঁর নিজস্ব জ্ঞান ও অভিজ্ঞতার কারণে চারটি প্রতিষ্ঠানের পরিচালনা পরিষদের সদস্য। এই চারটি প্রতিষ্ঠানই মুনাফাবিহীন স্বেচ্ছাসেবামূলক প্রতিষ্ঠান। এতে পরিচালনা পর্ষদের কারো আর্থিক সুবিধা পাবার কোন উপায় নেই।
প্রফেসর ইউনূসের অন্য কোন ভাই গ্রামীণ নামধারী কোনো প্রতিষ্ঠানের পরিচালনা পর্ষদের সঙ্গে যুক্ত নন।

৪.০ মাননীয় অর্থমন্ত্রীর বক্তব্যঃ ইউনূস সাহেব সময় দিতে পারতেন না। বোর্ড সভা হতো না, সিদ্ধান্ত হতো না।
জবাবঃ প্রফেসর ইউনূসের আমলে প্রতিবছর গ্রামীণ ব্যাংকের যতটা বোর্ড সভা হয়েছে, তাঁর গ্রামীণ ব্যাংক ছাড়ার পরেও প্রতিবছর সে ক’টা বোর্ড মিটিং-ই হয়েছে। প্রতিটি বোর্ড মিটিং-এ আগে যে পরিমাণ সময় ব্যয় হতো, এখনো তাই ব্যয় হয়।

৫.০ মাননীয় অর্থমন্ত্রীর বক্তব্যঃ ইউনূস সাহেব বে-আইনিভাবে এম.ডি.। ইউনূস সাহেবের আইনে বলা আছে ৬০ বছরে রিটায়ার করবে। বোর্ড বললো ইউনূস সাহেবকে অনির্দিষ্টকালের জন্য এম.ডি.করা হোক। বাংলাদেশ ব্যাংক প্রতি বছর অডিট করার সময় এটা তাঁকে স্মরণ করিয়ে দিয়েছে যে ৬০ বছর হয়েছে বলে আর থাকতে পারবেন না।
জবাবঃ বক্তব্যটি সম্পূর্ণ মিথ্যা। ১৯৯৯ সালে ডঃ ইউনূসের বয়স ৬০ বছর পূর্ণ হবার আগে জুলাই, ১৯৯৯ মাসে পরিচালনা পর্ষদের ৫২তম বোর্ড সভায় স্বেচ্ছাপ্রণোদিত হয়ে ডঃ ইউনূস তাঁর অবসর গ্রহনের বিষয়টি বোর্ডকে অবহিত করেন। বোর্ড গ্রামীণ ব্যাংক অধ্যাদেশের ১৪ নং ধারা মোতাবেক এমর্মে সর্বসম্মত সিদ্ধান্ত গ্রহণ করে যে, “যতদিন পর্যন্ত পরিচালকমণ্ডলী অন্য কোন সিদ্ধান্ত না-নিবে ততদিন পর্যন্ত প্রফেসর মুহাম্মদ ইউনূস ব্যবস্থাপনা পরিচালক পদে বহাল থাকবেন।” পরবর্তীতে ৩১ ডিসেম্বর, ১৯৯৯ তারিখ বাংলাদেশ ব্যাংকের পরিদর্শন প্রতিবেদনে ব্যবস্থাপনা পরিচালক পদে ডঃ ইউনূসের নিয়োগের বিষয়টি অনুমোদন নেয়া হয়নি বলে আপত্তি উত্থাপন করে। উক্ত আপত্তির প্রেক্ষিতে গ্রামীণ ব্যাংকে ২০ শে জুন, ২০০১ তারিখে পরিপালন প্রতিবেদনে ১৯৯০ সালে বাংলাদেশ ব্যাংক কর্তৃক অনুমোদন দেবার বিষয়টি উল্লেখ করে। পরিদর্শন প্রতিবেদনের এই অনিস্পত্তিকৃত বিষয় নিয়ে বাংলাদেশ ব্যাংক এবং গ্রামীণ ব্যাংকের ৩+৩ জন কর্মকর্তার সমন্বয়ে ১৫ জানুয়ারি, ২০০২ তারিখে একটি যৌথ সভা অনুষ্ঠিত হয়। যৌথ সভার সিদ্ধান্ত অনুযায়ী ব্যবস্থাপনা পরিচালক নিয়োগের ব্যাপারে গ্রামীণ ব্যাংক এতদসংক্রান্ত কাগজ-পত্র সহ পুনঃপরিপালন প্রতিবেদন প্রেরণ করে। পুনঃপরিপালন প্রতিবেদন পর্যালোচনা করে বাংলাদেশ ব্যাংক গ্রামীণ ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক নিয়োগের বিষয়টি নিস্পত্তি হয়েছে বলে বিবেচনা করে। প্রসঙ্গতঃ উল্লেখ্য যে, প্রতি বছরই বাংলাদেশ ব্যাংক গ্রামীণ ব্যাংক পরিদর্শন করে। কিন্তু ৬০ বছর উত্তীর্ণ হবার ব্যাপারে এরপর কখনো কোন আপত্তি উত্থাপন করেনি। এখানেও মাননীয় অর্থমন্ত্রী মিথ্যার আশ্রয় নিয়েছেন। যৌথ মিটিং এর কার্যবিবরণী থেকে স্পষ্টতঃই জানা যাবে যে, ডঃ ইউনূসের ৬০ বছর অতিক্রান্ত হবার পরও ব্যবস্থাপনা পরিচালক হিসেবে তাঁর দায়িত্ব পালনের বিষয়টি বাংলাদেশ ব্যাংক মেনে নিয়েছে। তাই বেআইনিভাবে ডঃ ইউনূস গ্রামীণ ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক থাকার কোন প্রশ্ন উঠে না।

৬.০ মাননীয় অর্থমন্ত্রীর বক্তব্যঃ ডঃ ইউনূস গ্রামীণ ব্যাংকের এমডি থাকাবস্থায় দেশের সামগ্রিক মাইক্রো ক্রেডিট কার্যক্রমের মাধ্যমে ব্যাংকিং খাতে অবদান ছিল ১৬ হাজার কোটি টাকা। গত ডিসেম্বর পর্যন্ত এই অবদান ৩৩ হাজার কোটি টাকায় উন্নীত হয়েছে।
জবাবঃ এই বক্তব্যের মাধ্যমে মাননীয় অর্থমন্ত্রী কি বোঝাতে চাচ্ছেন যে ডঃ ইউনূসের এমডি পদ ত্যাগের ফলে দেশের সমগ্র ক্ষুদ্রঋণ পরিমণ্ডলে বিশাল কর্মচাঞ্চল্য সৃষ্টি হয়েছে? এটা কি কারো বুঝতে কষ্ট হবে যে ডঃ ইউনূসের দায়িত্ব থাকা, বা না-থাকার সাথে ব্যাংকিং খাতে ক্ষুদ্রঋণের অংশ গ্রহণের কোন সম্পর্ক নেই। ডঃ ইউনূস গ্রামীণ ব্যাংক থেকে অবসর গ্রহণকালে (এপ্রিল, ২০১১) গ্রামীণ ব্যাংকের আদায়যোগ্য ঋণের পরিমাণ ছিলো ৭,০৭৩.০০ কোটি টাকা। বর্তমানে (মে, ২০১৩) আদায়যোগ্য ঋণের পরিমাণ ৮,৩০০.০০ কোটি টাকা। এটা গ্রামীণ ব্যাংক কর্মসূচির স্বাভাবিক প্রবৃদ্ধির অংশ।

৭.০ মাননীয় অর্থমন্ত্রীর বক্তব্যঃ মনে হয় গ্রামীণ ব্যাংকের ২২,০০০ শাখা রয়েছে।
জবাবঃ তথ্যটি মোটেই সঠিক নয়। মে, ২০১৩ মাস পর্যন্ত গ্রামীণ ব্যাংকের শাখার সংখ্যা হচ্ছে ২,৫৬৭ টি। তিনি যে তথ্য দিয়েছেন তার মাত্র ১১.৬৭শতাংশ।

৮.০ মাননীয় অর্থমন্ত্রীর বক্তব্যঃ ডঃ ইউনূস সাহেবকে ডেকে নিয়ে আমি বলছি আপনি এমডির পদ থেকে পদত্যাগ করুন, আমি আপনাকে এমেরিটাস বোর্ড মেম্বার করব। ডঃ ইউনূস বললেন, চিন্তা করে দেখি। এরপর গ্রামীণ ব্যাংকের নতুন চেয়ারম্যান নিয়োগ দিলাম। এরপর ডঃ ইউনূস সাহেব বললেন, তিনি এমডির পদ থেকে চলে গেলে ব্যাংকটি নাকি বন্ধ হয়ে যাবে।
জবাবঃ ডঃ ইউনূস ইতিপূর্বে কয়েকবার গ্রামীণ ব্যাংক থেকে অবসরে যাবার চেষ্টা করেছিলেন। এতে গ্রামীণ ব্যাংকের কর্মচারি এবং ঋণগ্রহিতার মধ্যে আতংক ছড়িয়ে পড়েছিল। তাই তিনি মসৃণভাবে দায়িত্ব হস্তান্তরে অর্থমন্ত্রী মহোদয়ের সাথে বেশ কয়েকবার সাক্ষাত করে এব্যাপারে তাঁর সহযোগিতা চান। গত ১৫ মার্চ, ২০১০ তারিখে ডঃ ইউনূস তাঁর অভিপ্রায় জানিয়ে অর্থমন্ত্রী মহোদয়ের স্বহস্তে লিখিত চিঠি দেন (পত্র সংযুক্ত)। তিনি চিঠিটি নিয়ে অর্থমন্ত্রী মহোদয়ের বাসায় গিয়ে তা নিজে পড়ে শোনান। মাননীয় অর্থমন্ত্রী চিঠির বক্তব্যের সঙ্গে একমত হয়ে সেভাবে অগ্রসর হবেন বলে মত প্রকাশ করেন। পরবর্তীতে অর্থমন্ত্রীর কোন উদ্যোগ না-দেখে প্রফেসর ইউনূস তাঁকে টেলিফোনে বিষয়টি স্মরণ করিয়ে দেন। তিনি তখনো বলেন যে বিষয়টি তাঁর মনে আছে এবং সেভাবেই তিনি অগ্রসর হবেন। কিন্তু সেভাবে অগ্রসর না হয়ে হঠাৎ করে তিনি পদত্যাগ দাবী করে বসলেন।

৯.০ মাননীয় অর্থমন্ত্রীর বক্তব্যঃ গ্রামীণ ব্যাংক বোর্ডের গ্যারান্টিতে সরোজ নামের একটি প্রতিষ্ঠানের কাছ থেকে (গ্রামীণ টেলিকম) ঋণ নেয়।
জবাবঃ এটা মিথ্যা বক্তব্য। গ্রামীণ টেলিকম কর্তৃক সরোজ ফাউন্ডেশন থেকে ঋণ নেয়ার ব্যাপারে গ্রামীণ ব্যাংক কোন গ্যারান্টি দেয়নি।

১০.০ মাননীয় অর্থমন্ত্রীর বক্তব্যঃ ১৯৯৮ সালের বন্যায় গ্রামীণ ব্যাংক ব্যাপক ক্ষতিগ্রস্ত হয়। তখন সরকার ৪০০ কোটি টাকা দিয়ে সহায়তা করেছিল।
জবাবঃ এটা মিথ্যা কথা। ১৯৯৮ সালের বন্যায় গ্রামীণ ব্যাংক ক্ষতিগ্রস্ত হলে গ্রামীণ ব্যাংককে সরকার থেকে কোন আর্থিক সহায়তা দেয়া হয়নি। গ্রামীণ ব্যাংক বাণিজ্যিক ব্যাংকের নিকট থেকে ৩ বছর মেয়াদে শতকরা ১০% সুদে ২০০ কোটি টাকা বন্ড বিক্রি করে অর্থ সংগ্রহ করেছিলো। আইনের বাধ্যবাধকতা থাকায় সরকারের গ্যারান্টি প্রয়োজন হয়েছিল। গ্রামীণ ব্যাংক যথাসময়ে সে টাকা পরিশোধ করে দেয়।

১১.০ গ্রামীণ ডানোন
সামাজিক ব্যবসা সম্বন্ধে ধারনা না-থাকায় তিনি এমন সব কথা বলেছেন যার কোন অর্থ দাঁড়ায় না। “স্যোশাল ইনভেস্টভেন্ট”এবং “স্যোশাল বিজনেস” তিনি একাকার করে ফেলেছেন। অতীতেও এবিষয়ে তাঁর বক্তব্যের প্রতিবাদ করে স্যোশাল বিজনেস কি সেটা ব্যাখ্যা করে দেয়া হয়েছিল। তিনি ডানোনের বিষয়ে বলেছেন ডানোন আগে মুনাফাবিহীন ব্যবসা হিসেবে শুরু করেছিল এখন মুনাফাভিত্তিক প্রতিষ্ঠানে পরিণত হয়েছে। তথ্যটি সম্পূর্ণ মিথ্যা। গ্রামীণ ডানোন একটি মুনাফাভিত্তিক প্রতিষ্ঠান হিসেবেই নিবন্ধনকৃত হয়েছে শুরু থেকেই। এখনো তাই আছে। তার আইনকাঠামোতে কোন পরিবর্তন হয়নি। সকল সামাজিক ব্যবসা মুনাফাভিত্তিক প্রতিষ্ঠান। শুধু এর বৈশিষ্ট্য হলো যে মালিক এর থেকে কোন মুনাফা নেয় না; শুধু মূলধন ফেরৎ নিতে পারে।

১২.০ গ্রামীণফোন
মাননীয় মন্ত্রী বলেছেন, ডঃ ইউনূস দাবী করেন গ্রামীণ ব্যাংকের সঙ্গে গ্রামীণফোনের মালিকানার কোন সম্পর্ক নেই। “এটা মিথ্যা, মিথ্যা, মিথ্যা”।ডঃ ইউনূস এখনো বলেন যে গ্রামীণ ফোনের সঙ্গে গ্রামীণ ব্যাংকের মালিকানার কোন সম্পর্ক নেই; এটা সত্য, সত্য, সত্য। এটা নিয়ে এত কথা কাটাকাটির দরকার কী? সরকারের যে দফতরের কাছে গ্রামীণফোনের শেয়ার-মালিকদের তালিকা আছে তাদের কাছ থেকে তালিকাটি চেয়ে নিলেই বিষয়টি নিষ্পত্তি হয়ে যায়। এটা ত কোন গোপন বিষয় নয়।

গ্রামীণ ব্যাংকের সঙ্গে শুধু যে গ্রামীণফোনের কোন মালিকানার সম্পর্ক নেই তাই নয়, অন্য কোন “গ্রামীণ” নামধারী কোম্পানীর সঙ্গেও তার কোন মালিকানার সম্পর্ক নেই। অযথা এই মালিকানা আবিস্কারের জন্য সকল কোম্পানীর সকল রকম কাগজ তলব করে এখন তোলপাড় কাণ্ড করা হচ্ছে। বহুবার বলা হয়েছে এগুলি স্বাধীন স্বতন্ত্র প্রতিষ্ঠান হিসেবে সরকারী দফতরে নিবন্ধনকৃত প্রতিষ্ঠান। বেশীরভাগ প্রতিষ্ঠান মালিকবিহীন প্রতিষ্ঠান। গ্রামীণ ব্যাংক মালিকবিহীন প্রতিষ্ঠানের মালিক হবে কি করে? এসব কথা বিস্তারিত বর্ণনা করে ইউনূস সেন্টার থেকে অনেক আগেই পুস্তিকা প্রকাশ করে প্রচার করা হয়েছে। সরকারকে বহুবার বুঝানো হয়েছে।

যেসব গ্রামীণ প্রতিষ্ঠানের মালিক আছে সেগুলির মালিকদের নাম-ঠিকানা সরকারী দফতরেই জমা আছে। এটা আবিস্কার করার জন্য অর্ধশত প্রতিষ্ঠানের গত পঁচিশ বছরের জমা বস্তা বস্তা কাগজ ঘাটার দরকার নেই।

প্রফেসর ডঃ ইউনূস কর্তৃক অর্থমন্ত্রী ড. আবুল মাল আবদুল মুহিত কে লিখিত চিঠি (২৫ মার্চ, ২০১০)

 

 

hard-extreme.com tellyseries