Yunus advises China to follow different development path to avoid wealth concentration in the hands of the few

Press Release (February 28, 2017)

Photo Caption : Top executives of key financial institutions of China with Nobel Laureate Prof Muhammad Yunus in Beijing.

Sitting Left to right: Zhihong YI, Deputy President, Renmin University of China, Yingbi Duan, Chairman, China Foundation of Poverty Alleviation, Prof. Muhammad Yunus, 2006 Nobel Peace Laureate, Madam Xiaoling WU, Standing Committee Member of National People's Congress (NPC) & Vice Chairwoman, NPC Finance and Economic Committee & Former Deputy Governor, The People's Bank of China, Qing WU, Chairman, Shanghai Stock Exchange, Duoguang BEI, President, Chinese Academy of Financial Inclusion. Standing left to right: Jun WANG, Adjunct Prof. Director of CEIBS-World Bank China Center for Financial Inclusion, CEIBS, Lamiya Morshed, ED, Yunus Center, Weixiong WU, Chairman, Hainan Rural Credit Union, Junfeng LI, DG, Financial Inclusion Department of CBRC, Long CHEN, CSO, Ant Finance, Ning TANG, Founder & CEO, CreditEase.

 

Nobel Laureate Professor Muhammad Yunus launched Yunus Social Business Centre at Renmin University in China (RUC) on 26 February. A leading university in China in the field of social sciences, is celebrating its 80th anniversary in 2017, is the first Beijing based university that has established a Yunus Social Business Center. The purpose of the center is to spread the idea of social business to its academics and students by creating courses on social business and also engage with business, industry, government and policy makers to spearhead social business and micro-finance in China. This is the 35th Yunus Social Business Centre. Other YSBCs are established in 34 other universities around the world. Professor Yunus was invited to the university to launch the centre. Vice Chancellor of the University explained why the university decided to set up the Centre.

The centre is a joint initiative of the business school of Renmin University and the Chinese Academy of Financial Inclusion (CAFI) which is working on accelerating financial inclusion for the rural poor in China. The University on this occasion also organized a day long forum on social business and micro-credit at the university where the experience of Grameen micro-credit and developments in social business were discussed in different sessions throughout the day. Professor Yunus made a keynote speech to open the conference, a public speech and later in the evening an address to the business school students of RUC. He also participated as a judge at a competition for social business design plan organized by the YSBC@RUC, where the three winning business plans addressed climate change, eco-farming and sustainable giving.

Professor Yunus was inducted as an advisor to CAFI alongside Madame Wu Zhaoling, the former deputy governor of Central Bank of China who worked extensively with Grameen Trust to expand microcredit in China.

On the second day of his stay in Beijing, Professor Yunus was invited to meet with the Vice Chairman of the China Banking Regulatory Commission to discuss about the developments of microfinance and social business in China. The Vice Chairman thanked Professor Yunus for his ongoing support to poverty alleviation efforts of China and pledged his support to Grameen's activities in China. Later in the morning, he was invited to a lunch with the President of Construction Bank of China, one of the top four leading banks of China that has been providing support to Grameen China microfinance projects in different provinces of China.

Professor Yunus was chief guest and keynote speaker at a special microfinance conference organized by Chinese Association of Microfinance, Grameen China, China Alliance of Social Value Investment. Many of the Chinese practitioners of microcredit exchanged their experiences at the conference including those representing Chinese Association of Microfinance and Grameen China among others. Professor Yunus' message to the practitioners was that China is an emerging economy and can follow a different path than other capitalist countries, where wealth concentration is so acute with huge gaps in wealth between the rich and the poor, and that microcredit and social business can help achieve a more equitable economy and society.

Earlier in the trip Professor Yunus was in Hong Kong for the launch of the first Yunus Social Business Centre at the prestigious Chinese University of Hong Kong (CUHK) which will be supported by the Hong Kong Jockey Club Charities Trust, a leading Hong Kong foundation. The YSBC at CUHK is the first social business centre in Hong Kong which plans to address issues such as inequality, housing shortages and ageing through social business.

Professor Yunus’ delegation during the visit included Managing Director and Adviser of Grameen Trust and Executive Director of Yunus Centre.

---- END -----

 

প্রেস রিলিজ

অল্প কিছু লোকের হাতে সম্পদ কেন্দ্রীকরণ এড়াতে চীনকে উন্নয়নের ভিন্ন পথ অনুসরণের পরামর্শ দিলেন প্রফেসর ইউনূস

নোবেল লরিয়েট প্রফেসর মুহাম্মদ ইউনূস ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০১৭ চীনের রেনমিন বিশ্ববিদ্যালয়ে “ইউনূস সামাজিক ব্যবসা কেন্দ্র” উদ্বোধন করেন। ২০১৭ সালে তার ৮০তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উদ্যাপনকারী সামাজিক বিজ্ঞানে নেতৃস্থানীয় এই বিশ্ববিদ্যালয়টি বেইজিং ভিত্তিক প্রথম বিশ্ববিদ্যালয় যেখানে ইউনূস সামাজিক ব্যবসা কেন্দ্র প্রতিষ্ঠিত হলো। সামাজিক ব্যবসার উপর বিভিন্ন কোর্স তৈরীর মাধ্যমে বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষক ও ছাত্রদের মধ্যে সামাজিক ব্যবসার ধারণার প্রসার এবং ব্যবসা, শিল্প, সরকার ও নীতিপ্রণেতাদের সাথে মিথস্ক্রিয়ার মাধ্যমে চীনে সামাজিক ব্যবসা ও ক্ষুদ্রঋণের সম্প্রসারণ এই কেন্দ্রের লক্ষ্য। বিশ্ব ব্যাপী এটি ৩৫তম ইউনূস সামাজিক ব্যবসা কেন্দ্র। এছাড়াও পৃথিবীর বিভিন্ন দেশের ৩৪টি বিশ্ববিদ্যালয়ে ইতোমধ্যে ইউনূস সামাজিক ব্যবসা কেন্দ্র প্রতিষ্ঠিত হয়েছে। নব প্রতিষ্ঠিত এই কেন্দ্রটি উদ্বোধন করতে বিশ্ববিদ্যালয়ের পক্ষ থেকে প্রফেসর ইউনূসকে আমন্ত্রণ জানানো হয়েছিল। অনুষ্ঠানে রেনমিন বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য বিশ্ববিদ্যালয়টিতে ইউনূস সামাজিক ব্যবসা কেন্দ্র প্রতিষ্ঠার উদ্দেশ্য ব্যাখ্যা করেন।

এই কেন্দ্রটি রেনমিন বিশ্ববিদ্যালয়ের বিজনেস স্কুল এবং চাইনিজ একাডেমী অব ফাইনান্সিয়াল ইনক্লুশন এর একটি যৌথ উদ্যোগ। চাইনিজ একাডেমী অব ফাইনান্সিয়াল ইনক্লুশন চীনের গ্রামীণ দরিদ্রদের জন্য অর্থনৈতিক অন্তর্ভূক্তি জোরদার করতে কাজ করে যাচ্ছে। এই উপলক্ষে রেনমিন বিশ্ববিদ্যালয় সামাজিক ব্যবসা ও ক্ষুদ্রঋণের উপর একটি দিনব্যাপী ফোরামের আয়োজন করে যেখানে ক্ষুদ্রঋণ ও সামাজিক ব্যবসার অগ্রগতি নিয়ে বিভিন্ন সেশনে দিনব্যাপী আলোচনা অনুষ্ঠিত হয়। প্রফেসর ইউনূসের মূল বক্তব্যের মাধ্যমে সম্মেলনটি শুরু হয়, এরপর তিনি একটি গণ বক্তৃতা এবং আরো পরে সন্ধায় রেনমিন বিশ্ববিদ্যালয়ের বিজনেস স্কুলের ছাত্রদের জন্য একটি বিশেষ বক্তৃতা প্রদান করেন। এছাড়াও তিনি YSBC@RUC আয়োজিত সোশ্যাল বিজনেস ডিজাইন প্ল্যান প্রতিযোগিতায় বিজয়ী তিন জনের উপস্থাপনা অনুষ্ঠানে বিচারক হিসেবে অংশগ্রহণ করেন। বিজয়ীরা জলবায়ু পরিবর্তন, ইকো ফার্মিং ও টেকসই দানশীলতার উপর তাঁদের পরিকল্পনা উপস্থাপন করেন।

প্রফেসর ইউনূসকে চাইনিজ একাডেমী অব ফাইনান্সিয়াল ইনক্লুশনে উপদেষ্টা হিসেবে অন্তর্ভূক্ত করা হয়েছে। একই সাথে অন্তর্ভূক্ত করা হয়েছে চীনের কেন্দ্রীয় ব্যাংকের প্রাক্তন ডেপুটি গভর্ণর ম্যাডাম উ ঝিয়াওলিংকে যিনি চীনে ক্ষুদ্রঋণের প্রসারে গ্রামীণ ট্রাস্টের সাথে ঘনিষ্টভাবে কাজ করে যাচ্ছেন।

বেইজিংয়ে তাঁর অবস্থানের দ্বিতীয় দিনে প্রফেসর ইউনূস চাইনিজ ব্যাংকিং রেগুলেটরী কমিশনের ভাইস চেয়ারম্যানের আমন্ত্রণে চীনে ক্ষুদ্রঋণ ও সামাজিক ব্যবসার অগ্রগতি নিয়ে আলোচনা করতে তাঁর সাথে সাক্ষাৎ করেন। ভাইস চেয়ারম্যান প্রফেসর ইউনূসকে চীনের দারিদ্র বিমোচন কর্মকান্ডে তাঁর নিরবচ্ছিন্ন সহায়তার জন্য ধন্যবাদ জানান এবং চীনে গ্রামীণের সকল কর্মকান্ডে তাঁর সহায়তার প্রতিশ্রুতি দেন। ঐ দিনই কনস্ট্রাকশন ব্যাংক অব চায়নার প্রেসিডেন্ট তাঁকে লাঞ্চে আমন্ত্রণ জানান। উল্লেখ্য যে, কনস্ট্রাকশন ব্যাংক অব চায়না চীনের শীর্ষ চারটি নেতৃস্থানীয় ব্যাংকের অন্যতম যা চীনের বিভিন্ন প্রদেশে গ্রামীণ চায়নার ক্ষুদ্রঋণ প্রকল্পগুলোকে সহায়তা দিয়ে আসছে।

প্রফেসর ইউনূস চাইনিজ এসোসিয়েশন অব মাইক্রোফাইনান্স, গ্রামীণ চায়না ও চায়না অ্যালায়েন্স অব সোশাল ভ্যালু ইনভেস্টমেন্ট আয়োজিত একটি বিশেষ ক্ষুদ্রঋণ সম্মেলনে প্রধান অতিথি ও মূল বক্তা হিসেবে ভাষণ দেন। সম্মেলনে চাইনিজ এসোসিয়েশন অব মাইক্রোফাইনান্স ও গ্রামীণ চায়নার নেতৃবৃন্দ সহ চীনে ক্ষুদ্রঋণ নিয়ে কাজ করছেন এমন অনেকে তাঁদের অভিজ্ঞতা বিনিময় করেন। প্রফেসর ইউনূস তাঁদের এই বার্তা দেন যে, একটি উদীয়মান অর্থনীতি হিসেবে চীন অন্যান্য পুঁজিবাদী দেশগুলোর চেয়ে উন্নয়নের ভিন্ন পথ অনুসরণ করতে পারে। তিনি বলেন যে, সেসব দেশে সম্পদ কেন্দ্রীকরণ ও ধনী-দরিদ্রের সম্পদের বৈষম্য মারাত্মক পর্যায়ে পৌঁছেছে এবং ক্ষুদ্রঋণ ও সামাজিক ব্যবসা একটি অধিকতর সমতাভিত্তিক অর্থনীতি ও সমাজ নির্মাণে সহায়তা করতে পারে।

সফরের শুরুতে প্রফেসর ইউনূস হংকং ভ্রমণ করেন। সেখানে তিনি হংকংয়ের মর্যাদাপূর্ণ চাইনিজ ইউনিভার্সিটি অব হংকং-এ প্রথম ইউনূস সামাজিক ব্যবসা কেন্দ্র উদ্বোধন করেন। হংকংয়ের নেতৃস্থানীয় ফাউন্ডেশন হংকং জকি ক্লাব চ্যারিটিজ টাস্ট এই কেন্দ্রটিকে প্রয়োজনীয় সহায়তা দেবে। চাইনিজ ইউনিভার্সিটি অব হংকংয়ের এই ইউনূস সামাজিক ব্যবসা কেন্দ্রটি হংকংয়ের প্রথম ইউনূস সামাজিক ব্যবসা কেন্দ্র যা সামাজিক ব্যবসার মাধ্যমে অসমতা, গৃহায়নের স্বল্পতা, বয়স্কদের সমস্যা ইত্যাদি মোকাবেলায় কাজ করবে।

প্রফেসর ইউনূসের প্রতিনিধিদলে তাঁর সফরসঙ্গী ছিলেন গ্রামীণ ট্রাস্টের ব্যবস্থাপনা পরিচালক, গ্রামীণ ট্রাস্টের উপদেষ্টা, এবং ইউনূস সেন্টারের নির্বাহী পরিচালক।

ছবির ক্যাপশন: বেইজিংয়ে নোবেল লরিয়েট প্রফেসর মুহাম্মদ ইউনূসের সাথে চীনের শীর্ষ আর্থিক প্রতিষ্ঠানসমূহের প্রধান নির্বাহীগণ।

বসা Ñ বাম থেকে ডানে : ঝিহং ই, ডেপুটি প্রেসিডেন্ট, রেনমিন ইউনিভার্সিটি অব চায়না; ইংবি ডুয়ান, চেয়ারম্যান, চীনা দারিদ্র বিমোচন ফাউন্ডেশন; ২০০৬ নোবেল শান্তি পুরস্কার জয়ী প্রফেসর মুহাম্মদ ইউনূস; ম্যাডাম ঝিয়াওলিং উ, ন্যাশনাল পিপলস কংগ্রেসের স্ট্যান্ডিং কমিটির সদস্য, এনপিসি ফাইনান্স এন্ড ইকোনমিক কমিটির ভাইস চেয়ারপার্সন এবং পিপলস ব্যাংক অব চায়নার প্রাক্তন ডেপুটি গভর্ণর; কিং উ, চেয়ারম্যান, সাংহাই স্টক এক্সচেঞ্জ; ডুওগুয়াং বিই, প্রেসিডেন্ট, চাইনিজ একাডেমী অব ফাইনান্সিয়াল ইনক্লুশন।

দাঁড়ানো Ñ বাম থেকে ডানে: জুন ওয়াং, অ্যাডজাঙ্কট প্রফেসর ও পরিচালক, সিইআইবিএস-ওয়ার্ল্ড ব্যাংক চায়না সেন্টার ফর ফাইনান্সিয়াল ইনক্লুশন, সিইআইবিএস; লামিয়া মোর্শেদ, নির্বাহী পরিচালক, ইউনূস সেন্টার; ওয়েজিয়ং উ, চেয়ারম্যান, হাইনান রুরাল ক্রেডিট ইউনিয়ন; জুনফেং লি, ডিরেক্টর জেনারেল, ফাইনান্সিয়াল ইনক্লুশন ডিপাার্টমেন্ট অব সিবিআরসি; লং চেন, সিএসও, এন্ট ফাইনান্স; নিং ট্যাং, প্রতিষ্ঠাতা ও প্রধান নির্বাহী, ক্রেডিট ইজ।

hard-extreme.com tellyseries