Chandigarh University Appoints Yunus as a Member of its Executive Council and Confers Honorary Doctorate

Press Release (09 January, 2017)

Nobel Laureate Professor Muhammad Yunus is being conferred Honorary Doctorate by the Chancellor Mr.  Santam Sing Sandhu and Vice Chancellor Dr. R. S. Bawa at  Chandigarh University Convocation Ceremony on January 8, 2017 in Punjab, India.

Professor Yunus was invited to Chandigarh University, Punjab, India at the Convocation Ceremony of the university on January 8, 2017.   He was invited by the Chancellor of the University to join its Executive Council which is the highest policy-making body of the university. Professor Yunus attended the ceremony as the convocation speaker and he was conferred an Honorary Doctor of Science degree.

On arrival at the university, the Vice Chancellor and senior faculty received Professor Yunus in the manner of Punjabi tradition of festivities.The entire campus was decorated with festoons displaying his portraits. The Vice Chancellor gave a presentation on the university detailing all the achievements and grand accomplishments in past years. He particularly focused on the innovative curricula of the university which is drawing the attention of international students from twenty countries.  Professor Yunus had an intensive discussion session with the VC, Pro-VC, Members of the Executive Council, Dean of Business School and other senior faculty, on the role of the university for building the future generations.  Vice Chancellor announced in the meeting that a Yunus Centre for Social Business will be established in the university in collaboration with Yunus Centre of Bangladesh. Besides offering social business courses, this Centre will hold a National Forum on Social Business each year at various locations in India.

 

Professor Yunus was taken around the R&D laboratories which are working in collaboration with the prestigious international companies as well as the renowned Indian companies. He visited the business incubation centre of the university which has been established inspired by the ideas of Professor Yunus himself. It may be mentioned that the Chandigarh University R&D register more than 25 patents each year.

In the convocation, the honorary degree of Doctor of Science was conferred on Professor Yunus by the Chancellor of Chandigarh University. The Vice- Chancellor mentioned that he had been trying to bring Professor Yunus to Chandigarh University for the last six years.  Finally he succeeded in getting him as the Convocation Speaker this year.  Prof. Yunus in his speech encouraged the graduates to use their knowledge for social good, and not to be afraid to explore where one does not have formal knowledge. Professor Yunus mentioned that he founded Grameen Bank even though he had no formal training in banking.

He thought banking system is erroneous because the bank gives money to those who already have a lot of money, not to those who do not have money- this motivated him to create Grameen Bank which lends money to the poor. He asked the graduates to be entrepreneurs and try to be job creators rather than job-seekers. He reminded  the graduates that they are lucky not only because they are  graduating at a time of wonderful technologies which can easily  enable them to be innovative and entrepreneurial  for social goals,  also because they are from this university whose mission is to enable them to serve the society.  Professor Yunus explained how a new world can be created by the power of social business, power of technology, and the power of the youth.

He urged them to realize three zeros --zero poverty, zero unemployment, and zero net carbon emission. He called upon the graduates to help usher a new world of three zeros.

The Vice Chancellor declared that the university is proud that Professor Yunus has agreed to be a member of the Executive Council of the Chandigarh University.

Nobel Laureate Professor Muhammad Yunus is being appointed as a Member of Executive Council of Chandigarh University at the Convocation Ceremony on January 8, 2017 in Punjab, India. The Chancellor of the university Mr.  Santam Sing Sandhu and Vice Chancellor Dr. R. S. Bawa honored him this prestigious post.

Nobel Laureate Professor Muhammad Yunus with the graduate students of Chandigarh University at the Convocation Ceremony on January 8, 2017 in Punjab, India.

---------- End -------

In Bangla

 

প্রেস রিলিজ

চন্ডিগড় বিশ্ববিদ্যালয়ের নির্বাহী পরিষদে প্রফেসর ইউনূস, বিশ্ববিদ্যালয়ের সম্মানসূচক ডক্টরেট ডিগ্রীতে ভূষিত।

 

৮ জানুয়ারী ২০১৭ নোবেল লরিয়েট প্রফেসর মুহাম্মদ ইউনূস তাঁর এক দিনের সফরে ভারতের পাঞ্জাবে অবস্থিত চন্ডিগড় বিশ্ববিদ্যালয়ে পৌঁছান। তাঁর সফরকালে প্রখ্যাত এই বিশ্ববিদ্যালয়ের চ্যান্সেলর বিশ্ববিদ্যালয়টির সর্বোচ্চ নীতিনির্ধারণী কর্তৃপক্ষ এর “নির্বাহী পরিষদ”-এর সদস্য হতে প্রফেসর ইউনূসকে আমন্ত্রণ জানান। ঐ দিনই বিশ্ববিদ্যলয়ের সমাবর্তন অনুষ্ঠানে যেখানে  প্রফেসর ইউনূস সমাবর্তন বক্তা হিসেবে যোগ দেন, তাঁকে সম্মানসূচক ডক্টরেট ডিগ্রী অর্পণ করা হয়।

প্রফেসর ইউনূস চন্ডিগড় বিশ্ববিদ্যালয়ে পৌঁছালে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য ও সিনিয়র শিক্ষকরা তাঁকে পাঞ্জাবের ঐতিহ্যবাহী জাঁকজমকপূর্ণ কায়দায় অভ্যর্থনা জানান। বিশ্ববিদালয়টির পুরো ক্যাম্পাস প্রফেসর ইউনূসের ছবি সম্বলিত ফেস্টুন দিয়ে সজ্জিত ছিল। উপাচার্য তাঁর একটি উপস্থাপনায় প্রফেসর ইউনূসকে বিশ্ববিদ্যালয়ের সকল গুরুত্বপূর্ণ অর্জন ও ঘটনাবলী বিষয়ে অবহিত করেন। তিনি বিশেষ করে বিশ্ববিদ্যালয়ের উদ্ভাবনশীল পাঠ্যসূচির উপর জোর দেন যার জন্য বিশ্ববিদ্যালয়টি ২০টি দেশ থেকে ছাত্র আকৃষ্ট করতে পেরেছে। বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য, উপ-উপাচার্য, নির্বাহী পরিষদ সদস্য, বিজনেস স্কুলসমূহের ডীন ও অন্যান্য সিনিয়র শিক্ষকগণ পরবর্তী প্রজন্মগুলোকে গড়ে তুলতে বিশ্ববিদ্যালয়টি কী ভূমিকা পালন করছে তা নিয়ে প্রফেসর ইউনূসের সাথে বিস্তারিত আলোচনা করেন। বৈঠকে উপাচার্য ঘোষণা করেন যে, বাংলাদেশের ইউনূস সেন্টারের সাথে যৌথভাবে চন্ডিগড় বিশ্ববিদ্যালয়ে একটি “ইউনূস সামাজিক ব্যবসা কেন্দ্র” প্রতিষ্ঠা করা হবে। সামাজিক ব্যবসার উপর বিভিন্ন কোর্স প্রদান ছাড়াও কেন্দ্রটি প্রতি বছর ভারতের বিভিন্ন স্থানে সামাজিক ব্যবসার উপর জাতীয় ফোরামের আয়োজন করবে।

প্রফেসর ইউনূসকে এরপর বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষণা ও উন্নয়ন ল্যাবরেটরীগুলোতে নিয়ে যাওয়া হয় যেগুলো বিভিন্ন খ্যাতনামা ভারতীয় ও আন্তর্জাতিক কোম্পানীর সাথে যৌথভাবে কাজ করছে। প্রফেসর ইউনূসেরই আইডিয়ায় অনুপ্রাণিত হয়ে তৈরী এই বিশ্ববিদ্যালয়ের বিজনেস ইনকিউবেশন সেন্টারটিও তিনি পরিদর্শন করেন। উল্লেখ্য যে, চন্ডিগড় বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষণা ও উন্নয়ন প্রতি বছর ২৫টির বেশী পেটেন্ট নিবন্ধিত করে থাকে।

সমাবর্তন অনুষ্ঠানে চন্ডিগড় বিশ্ববিদ্যালয়ের চ্যান্সেলর প্রফেসর ইউনূসকে সম্মানসূচক “ডক্টর অব সায়েন্স” ডিগ্রীতে ভূষিত করেন। উপাচার্য বলেন যে, তিনি গত ৬ বছর ধরে প্রফেসর ইউনূসকে এই বিশ্ববিদ্যালয়ে আনার জন্য চেষ্টা করছিলেন। শেষ পর্যন্ত তিনি এ বছর প্রফেসর ইউনূসকে বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাবর্তন বক্তা হিসেবে আনতে সক্ষম হয়েছেন। প্রফেসর ইউনূস তাঁর বক্তৃতায় সদ্য গ্র্যাজুয়েটদেরকে তাদের জ্ঞান সমাজের কল্যাণে ব্যবহার করতে এবং যেসব ক্ষেত্রে কারো কোন প্রাতিষ্ঠানিক ডিগ্রী নেই সেখানেও নির্ভয়ে অনুসন্ধান চালাতে আহ্বান জানান। তিনি উল্লেখ করেন যে, ব্যাংকিংয়ে তাঁর কোন প্রাতিষ্ঠানিক প্রশিক্ষণ না থাকলেও তিনি গ্রামীণ ব্যাংক প্রতিষ্ঠা করতে পেরেছিলেন।

তিনি আরো বলেন, ব্যাংকিং ব্যবস্থাটি ভুল নীতির উপর দাঁড়িয়ে আছে কেননা ব্যাংক তাকেই টাকা দেয় যার এরই মধ্যে অনেক টাকা আছে, তাকে নয় যার কোন টাকা নেই। এ কারণেই তিনি দরিদ্র মানুষদের হাতে পূঁজি তুলে দিতে গ্রামীণ ব্যাংক তৈরী করেছিলেন। তিনি গ্র্যাজুয়েটদেরকে উদ্যোক্তা হতে এবং চাকরি না খুঁজে বরং চাকরি সৃষ্টির চেষ্টা করতে উৎসাহিত করেন। তিনি তাদের স্মরণ করিয়ে দেন যে, তারা ভাগ্যবান কেননা তারা এমন এক সময়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের লেখাপড়া শেষ করে বের হচ্ছে যখন বিস্ময়কর সব প্রযুক্তি একজন উদ্যোক্তাকে বিভিন্ন উদ্ভাবনশীল উপায়ে তার সামাজিক লক্ষ্য অর্জনের কাজটি অনেক সহজ করে দিয়েছে। তারা আরো ভাগ্যবান যে, তারা এমন একটি বিশ্ববিদ্যালয়ে লেখাপড়া করেছে যার উদ্দেশ্যই হচ্ছে তার ছাত্রদেরকে সমাজের সেবার জন্য প্রস্তুত করা। সামাজিক ব্যবসা, প্রযুক্তি ও তারুণ্যের সম্মিলিত শক্তি কীভাবে একটি নতুন পৃথিবী সৃষ্টি করতে পারে তা তিনি তাদের কাছে ব্যাখ্যা করেন।

প্রফেসর ইউনূস গ্র্যাজুয়েটদেরকে তিনটি শূন্য’র - অর্থাৎ শূন্য দারিদ্র, শূন্য বেকারত্ব ও শূন্য নীট কার্বন নিঃস্বরণের বৈশ্বিক লক্ষ্য বাস্তবায়নে কাজ করারও আহ্বান জানান।

উপাচার্য ঘোষণা করেন যে, প্রফেসর ইউনূস চন্ডিগড় বিশ্ববিদ্যালয়ের নির্বাহী পরিষদের সদস্য হতে সম্মত হওয়ায় তাঁর বিশ্ববিদ্যালয় গর্বিত।

 

ছবির ক্যাপশন-১: ৮ জানুয়ারী ২০১৭ ভারতের পাঞ্জাবে অবস্থিত চন্ডিগড় বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাবর্তন অনুষ্ঠানে নোবেল লরিয়েট প্রফেসর মুহাম্মদ ইউনূসকে সম্মানসূচক ডক্টরেট ডিগ্রী অর্পণ করছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের চ্যান্সেলর জনাব শান্তম সিং সন্ধু ও উপাচার্য ড. আর, এস, বাওয়া।

ছবির ক্যাপশন-২: ৮ জানুয়ারী ২০১৭ ভারতের পাঞ্জাবে অবস্থিত চন্ডিগড় বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাবর্তন অনুষ্ঠানে নোবেল লরিয়েট প্রফেসর মুহাম্মদ ইউনূসকে চন্ডিগড় বিশ্ববিদ্যালয়ের নির্বাহী পরিষদের সদস্যপদ প্রদান করা হয়। বিশ্ববিদ্যালয়ের চ্যান্সেলর জনাব শান্তম সিং সন্ধু ও উপাচার্য ড. আর, এস, বাওয়া তাঁকে এই সম্মানসূচক পদবী প্রদান করেন।

ছবির ক্যাপশন-৩: ৮ জানুয়ারী ২০১৭ ভারতের পাঞ্জাবে অবস্থিত চন্ডিগড় বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাবর্তন অনুষ্ঠানে গ্র্যাজুয়েটদের সাথে নোবেল লরিয়েট প্রফেসর মুহাম্মদ ইউনূস।

hard-extreme.com tellyseries