Yunus meets UN Secretary General at UN SDG Advocates’ Meeting at UN HQ

Yunus Centre Press Release (25 September, 2016)

Nobel Laureate Professor Muhammad Yunus is seen among other SDG advocates who met Secretary General of UN, Ban Ki Moon on September 23, 2016. SDG advocates, seen with Professor Yunus, include Norwegian Prime Minister Erna Solberg( sitting besides Ban Ki Moon),Crown Princess Victoria of Sweden; Thomas Gass, United Nations Assistant Secretary-General, Mr. Richard Curtis, Producer and Film Director, Alaa Murabit, Founder of The Voice of Libyan Women; Paul Polman, Chief Executive Officer of Unilever, Nobel Peace Laureate Ms. Leymah Gbowee, Ambassador Dho Young-Shim, Chairperson, United Nations World Tourism Organization’s Sustainable Tourism for Eliminating Poverty (ST-EP) Foundation, Professor Jeffrey Sachs, Director, Earth Institute at Columbia University, Mr. Forrest Whitaker, Founder and CEO, Whitaker Peace & Development Initiative among others.

Nobel Laureate Professor Yunus along with fellow Sustainable Development Goal (SDG) advocates held meeting with UN Secretary General at the chair for the last time before he steps out of UN, at UN head quarter on September 23, 2016.  Launched on 21 January 2016 on the occasion of the World Economic Forum in Davos, the SDG Advocates consist of 17 eminent persons assisting the UN Secretary-General in the campaign to achieve the Sustainable Development Goals (SDGs) that world leaders unanimously adopted in September 2015.

With a mandate to support the Secretary-General in his efforts to generate momentum and commitment to achieve the SDGs by 2030, the SDG Advocates have been working to promote the universal sustainable development agenda, to raise awareness of the integrated nature of the SDGs, and to foster the engagement of new stakeholders in the implementation of these Goals.

SDG Advocates Group is co-chaired by Norwegian Prime Minister Erna Solberg and  Ghana President John Dramani Mahama. Besides Professor Yunus other members of SDG are Queen Mathilde of Belgium; Crown Princess Victoria of Sweden; Jack Ma, Founder and Executive Chairman of the Chinese Alibaba Group of Internet-based businesses; and Leo Messi, the world renowned Argentine-born footballer,  who is also a UN Children’s Fund Goodwill Ambassador, Shakira, the famous singer, Sheikha Moza bint Nasser, Co-Founder of the Qatar Foundation; Alaa Murabit, Founder of The Voice of Libyan Women; Paul Polman, Chief Executive Officer of Unilever.

 

This meeting is the last one chaired by Ban Ki Moon. During the meeting Professor Yunus urged secretary general Ban ki  Moon  to continue to lead world even after he leaves the UN position.

Professor Yunus  thanked secretary general  Ban Ki Moon for contributing uniquely in changing the world to move in the right direction. UN will miss him, and the world will miss him after he leaves his position. He'll be remembered in the world history for crafting the SDGs and steering them through the UN decision-making process to build a global consensus around them despite many strong opposition to them. He'll have a permanent place in history for bringing all nations of the world to sign on the Paris Agreement to protect the world from global warming and adopting binding targets.

Professor Yunus proposed that he lead a civil society movement to make sure SDGs are implemented with full vigour and commitment.  This civil society movement may organize two SDG summits every year, one for all civil society organizations, one for the youths of the world. Other members of the SDG Advocates group supported expressed their support to professor Yunus's  proposal and congratulated Secretary General for securing the Paris Climate Agreements which he said is one of the historic milestone for human history. setting the stage for the world to overcome all major social and environmental problems.

Later Professor Yunus met HRH Crown Princess Victoria of Sweden at the Swedish UN Mission Head Quarter at her invitation. They discussed the proposal presented by Professor Yunus at the SDG group meeting.  He briefed her about social business and its potential in addressing pressing global challenges like poverty, unemployment and climate issues. They talked about possibility of launching social business initiatives in Sweden. Professor Yunus will meet HRH Crown Princess in Stockholm this year to follow up on the discussion held in NY.

Nobel Laureate Professor Muhammad Yunus is congratulating outgoing Secretary General of UN, Ban Ki Moon on his successes during his 10 years tenure including the Paris Climate Agreement on September 23, 2016.  

--- End ---


প্রেস রিলিজ

জাতিসংঘের সদর দপ্তরে ‘এসডিজি এডভোকেটস’ মিটিং এ  জাতিসংঘের মহাসচিবের সাথে নোবেল বিজয়ী প্রফেসর মুহাম্মদ ইউনূসের সাক্ষাৎ। 

নোবেল বিজয়ী প্রফেসর মুহাম্মদ  ইউনূস টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রার (এস ডি জি) শীর্ষ সদস্য বৃন্দদের নিয়ে  জাতিসংঘের সেক্রেটারি জেনারেলের বিদায়ের পূর্বে তার সদর দফতরে গত ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৬  সাক্ষাত করেন।

 গত ২১ জানুয়ারি, ২০১৬ ডাভোসে  বিশ্ব অর্থনৈতিক ফোরামের একটি অনুষ্ঠানে টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রার অর্জনের প্রচারণায় জাতিসংঘের মহাসচিবকে  সহযোগিতা করার জন্য বিশ্বের বিখ্যাত ১৭ জন  ব্যক্তিদের সমন্বয়ে গঠিত  এসডিজি এডভোকেটস' যাত্রা শুরু করে যা বিশ্বনেতারা সর্বস্বমতিক্রমে সেপ্টেম্বর ২০১৫  গ্রহণ করেন।

 ২০৩০ সালের মধ্যে এসডিজি লক্ষ্যমাত্রা অর্জনের অংগীকার রক্ষা ও গতিশীলতা সৃষ্টিতে জাতিসংঘের মহাসচিবকে সহযোগীতার জন্য এসডিজি সমর্থনকারীরা বৈশ্বিক উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রার এজেন্ডা উন্নীত করতে, এসডিজির প্রকৃতির ব্যাপারে সচেতনতা বৃদ্ধি এবং নতুন অংশীদারদের অন্তর্ভুক্তিকরণে কাজ করে যাচ্ছে।নরওয়ের প্রধানমন্ত্রী এলনা সোলবার্গ এবং ঘানার প্রেসিডেন্ট জন ড্রামানি মাহামা সহ-পরিচালনায় এই এসডিজি এডভোকেটস গ্রুপ পরিচালিত হয়।

 প্রফেসর মুহাম্মদ ইউনূসের পাশাপাশি অন্যান্য উল্লেখযোগ্য এসডিজি সমর্থনকারীরা হলেন- বেলজিয়ামের রানী মাথিলডে, সুইডেনের ক্রাউন প্রিন্সেস ভিক্টোরিয়া, চীনের অনলাইন ভিত্তিক কোম্পানী আলীবাবা ডট কমের প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান জ্যাক মা, আর্জেন্টাইন খেলোয়ার এবং জাতিসংঘের শিশু তহবিলের এম্বাসেডর লিও মেসি, কাতার ফাউন্ডেশন এর সহকারী প্রতিষ্ঠাতা শেখ মোজা বিন্ত নাসের, ভয়েস অব লিবিয়ান উইমেন এর প্রতিষ্ঠাতা আলা মুরাতিব এবং ইউনিলিভারের প্রধান কর্মকর্তা পল পলম্যান।

উল্লেখ্য যে,জাতিসংঘের মহাসচিব হিসেবে বান কি মুনের এটি শেষ বৈঠক।  প্রফেসর ইউনূস  মিটিংএ উপস্থিত  বান কি মুনকে  জাতিসংঘের পদ থেকে অবসরের পরেও বিশ্বের নেতৃত্বর্তে থাকার জন্য অনুরোধ করেন।

 প্রফেসর মুহাম্মদ ইউনূস  জাতিসংঘের মহাসচিব বান কি মুন কে ধন্যবাদ জানিয়ে বলেন তিনি সঠিক সময়ে পৃথিবীকে বদলিয়ে দিতে সঠিক নির্দেশনা দিতে পেরেছেন। এই জন্য তার বিদায়ের পরে জাতিসংঘ এবং পৃথিবীবাসী  তার  অভাব অনুভব করবে। অনেক বাধা বিপত্তি   সত্বেও এসডিজি নির্দেশনা জাতিসংঘের মাধ্যমে পরিচালিত করে বিশ্বব্যাপী ঐক্যমত গড়ে তুলতে পৃথিবীর ইতিহাসে তিনি স্মরণীয় হয়ে থাকবেন। এসডিজি এডভোকেটসগণ প্যারিসে জলবায়ু চুক্তির জন্য বান কি মুনকে অভিনন্দন জানান এবং এটিকে তারা মানব ইতিহাসের একটি ঐতিহাসিক মাইলফলক হিসেবে বিবেচনা করেন।

 প্রফেসর মুহাম্মদ ইউনূস প্রস্তাব করেন সুশীল সমাজ এসডিজি বাস্তবায়নে তাদের পূর্ণ শক্তি এবং জবাবদিহিতা  নিশ্চিত করবে। সুশীল সমাজ প্রতি বছর এসডিজিকে ঘিরে দু'টি অনুষ্ঠানের  আয়োজন করতে পারে। একটি হলো সিভিল সোসাইটি সামিট যা  সুশীল সমাজের সব সংগঠকদেরকে এসডিজি সাফল্যকে নিশ্চিত করতে  প্রতি বছর  একত্রিত  করতে পারে । অন্যটি, হলো ইয়ুুথ সামিট যা বিশ্বের সমগ্র যুব সংগঠকদেরকে একত্রিত করতে পারে। এই গ্রুপের অন্যান্য সদস্যরা প্রস্তাবটি আন্তরিক ভাবে গ্রহণ করেছেন।

 পরবর্তীতে, প্রফেসর ইউনূস সুইডেন ইউএন মিশন হেডকোয়ার্টারে সুইডেনের ক্রাউন প্রিন্সেস ভিক্টোরিয়া আয়োজিত এক অভ্যর্থনায় যোগ দেন। ইউনূস তাকে  দারিদ্র্য, বেকারত্ব এবং জলবায়ু পরিবর্তনের মত  বৈশ্বিক চ্যালেঞ্জের মোকাবেলায় সামাজিক ব্যবসার সম্ভাব্যতার ব্যাপারে কথা বলেন। তারা সুইডেনে স্যোশাল বিজনেসের সম্ভাব্যতা নিয়ে আলোচনা করেন। প্রফেসর ইউনূস সুইডেনের  রাজধানী স্টকহোমে ক্রাউন প্রিন্সেস এর  সাথে চলতি বছরে সাক্ষাত করবেন এবং নিউইয়র্কে   আলোচনার বিষয়বস্তু তুলে ধরবেন।

hard-extreme.com tellyseries